kalerkantho


ইউপি নির্বাচন

ভোলায় ৪৬৬ ভোটকেন্দ্রের ৪০৫টি ঝুঁকিপূর্ণ

ভোলা প্রতিনিধি    

২১ মার্চ, ২০১৬ ১৭:৪১



ভোলায় ৪৬৬ ভোটকেন্দ্রের ৪০৫টি ঝুঁকিপূর্ণ

প্রথম দলীয় প্রতীকে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের প্রথম ধাপে ভোলার ৪১টি ইউনিয়নের ৪৬৬টি ভোটকেন্দ্রে আগামীকাল মঙ্গলবার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। বিধি অনুযায়ী গতকাল রবিবার মধ্যরাত থেকে সব ধরনের নির্বাচনী প্রচারণা বন্ধ হয়ে গেছে। পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সদস্যরা নির্বাচনী মাঠে নেমে পড়েছেন। অপরদিকে, ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে আজ সোমবার সকাল থেকে বিভিন্ন কেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে ব্যালট পেপার ও ব্যালট বাক্সসহ সব ধরনের নির্বাচনী সামগ্রী।

ভোলার পুলিশ সুপার কার্যালয়ের গোয়েন্দা শাখার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ভোলার ৪১টি ইউনিয়নের ৪৬৬টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৪০৫টি ভোটকেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে ভোলা সদরের ১০টি ইউনিয়নের ১১৫টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৯৯টি, দৌলতখান উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের ৫৭টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৪৯টি, বোরহানউদ্দিনের ৯টি ইউনিয়নের ৯৯টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৯৯টি, তজুমদ্দিন উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের ৪৬টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৪৬টি, লালমোহন উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের ৩৫টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৩০টি, চরফ্যাশন উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ৮৬টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৬১টি ও মনপুরা উপজেলার একটি ইউনিয়নের ১৩টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে চারটি ভোটকেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে বোরহানউদ্দিন ও তজুমদ্দিন উপজেলার সব কয়টি ভোটকেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ।

ভোলার জেলা প্রশাসক মো. সেলিম উদ্দিন জানান, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে, নেওয়া হয়েছে চার স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা। এর মধ্যে আট হাজার আনসার, দুই হাজার ৪৫০ জন পুলিশ, সাত প্লাটুন র‍্যাব, সাত প্লাটুন বিজিবি, ছয় প্লাটুন কোস্ট গার্ডের মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স এবং ২৮ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাচনী মাঠে দায়িত্ব পালন করবেন।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. হেলাল উদ্দিন খান বলেন, "নির্বাচনের জন্য ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনী সামগ্রী ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট প্রিসাইডিং অফিসাররা বিভিন্ন কেন্দ্রে নিয়ে গেছেন। আমরা আশা করছি উৎসবমুখর পরিবেশে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন উপহার দিতে পারব। "

 


মন্তব্য