kalerkantho


রৌমারীতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি    

২১ মার্চ, ২০১৬ ১৪:৪৭



রৌমারীতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

কুড়িগ্রামের রৌমারীতে তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে মাহবুবুল আলম জুয়েল (৩০) নামে এক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। গুরুতর অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। গতকাল রবিবার রাতে উপজেলার খঞ্জনমারা নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।
 
আহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রবিবার রাতে খঞ্জনমারা ইউনিয়ন পরিষদে বিশ্বকাপ ক্রিকেট খেলা দেখে বাড়ি ফিরছিলেন জুয়েল। পথে ওত পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তার ওপর হামলা চালায়। এ সময় সন্ত্রাসীরা তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মৃত ভেবে রাস্তার পাশে একটি ধান ক্ষেতে ফেলে রাখে। এ সময় এক পথচারী তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। ওই রাতেই তাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে আজ সোমবার তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

আহতের পরিবারের অভিযোগ স্লুইস গেইট এলাকায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের অফিসঘর নিয়ে এলাকার একটি পক্ষের সঙ্গে বিরোধ বাঁধে তার সঙ্গে।

এ ছাড়া গত ২০ ফেব্রুয়ারি খঞ্জনমারা স্কুল মাঠে ভলিবল খেলাকে কেন্দ্র করেও ওই পক্ষের সঙ্গে ঝগড়া হয় তার। ওই দুটি ঘটনাকে কেন্দ্র একই এলাকার মতিউর রহমান, মাইদুল ইসলাম ও শাহীন মিয়া জুয়েলকে মারার হুমকি দেয়। ওই তিনজনের সঙ্গে আরো পাঁচজনসহ মোট আটজনে মিলে পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যার চেষ্টা চালায়। আহত জুয়েল বন্দবেড় ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলে জানা গেছে। উপজেলার খঞ্জনমারা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল হকের ছেলে তিনি।

ওই ঘটনায় আহতের বাবা মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল হক সাতজনের নাম উল্লেখসহ ১০-১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। পুলিশ আসামিদের গ্রেপ্তারের জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালালেও এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রবিউল ইসলাম মামলা হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, "আসামিদের গ্রেপ্তারসহ পুরো বিষয়টি তদন্তে কাজ চলছে। "

 


মন্তব্য