kalerkantho


মহেশখালী পৌরসভা নির্বাচন

‘আঁই এবার আরাম গরি ভোট দিইয়্যি’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ মার্চ, ২০১৬ ২০:৩৩



‘আঁই এবার আরাম গরি ভোট দিইয়্যি’

কালাবুড়ি দে (৬৫) মনের সুখে ভোট দিয়েছেন। আজ রবিবার মহেশখালী পৌরসভায় ভোট কেন্দ্রে আলাপ হয় কালাবুড়ির সাথে।

তিনি বলেন, বাবুরে ভোটে যে জিতিব জিতুক-আঁই এবার আরাম গরি ভোট দিইয়্যি।

কক্সবাজারের মহেশখালী পৌরসভার আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে লাঠিতে ভর দিয়ে পুত্রবধূকে সাথে নিয়ে বৃদ্ধা কালাবুড়ি এসেছিলেন ভোট দিতে। বিজয়রাম সরদার পাড়ার বাসিন্দা প্রয়াত পূর্ণ চন্দ্র দের স্ত্রী কালাবুড়ি জীবনের বহুবার ভোট কেন্দ্রে আসতে পারেননি। সংঘাত আর হানাহানির কারণে অনেকবার ভোট কেন্দ্র থেকে ফিরেও গেছেন তিনি। কিন্তু এবার বেশ আরামেই ভোট দিয়েছেন।

এবারের নির্বাচন নিয়ে মহেশখালী পৌরসভায় তৃতীয়বারের মত পৌর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো। এদিন পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের ৯টি ভোট কেন্দ্রে ভোটের বুথ ছিল ৪২টি। নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার এবং মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ ও কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ড. অনুপম সাহা সরেজমিনে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের ৯টি ভোট কেন্দ্র পরিদর্শনকালে বিকাল ৩টা পর্যন্ত অত্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণের দৃশ্য দেখা গেছে। কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন ও পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথ ভোট কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে জানান, নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে শান্তিপূর্ণভাবে।

তবে বিকাল ৩টার পর মহেশখালীর ঘোনারপাড়া ফোরকানিয়া মাদ্রাসা ভোট কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী মকসুদ মিয়া ও দলীয় বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী সরওয়ার আজমের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়। তাদের মধ্যে ৭ জন গুলিবিদ্ধ।
এ বিষয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী অভিযোগ করেছেন, মেয়র প্রার্থী মকসুদ মিয়ার এজেন্টরা ব্যালটে সীল মারা ঘটনাকে কন্দ্রে করে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

 


মন্তব্য