kalerkantho

সোমবার। ২৩ জানুয়ারি ২০১৭ । ১০ মাঘ ১৪২৩। ২৪ রবিউস সানি ১৪৩৮।


যুবকরাই মাদক ব্যবসায়ীদের আটক করে পুলিশে দিল

তানোর প্রতিনিধি   

২০ মার্চ, ২০১৬ ১৬:৩৬



যুবকরাই মাদক ব্যবসায়ীদের আটক করে পুলিশে দিল

যে কাজটি করার কথা ছিল জনপ্রতিনিধি কিংবা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সেই কাজটি শেষ পর্যন্ত করে দেখাল গ্রামের স্কুল-কলেজপড়ুয়া ১০/১২ জন যুবক। আর এই ঘটনায় যুবকদের উদ্যম ও উৎসাহ দেখে এগিয়ে এলো গ্রামের সর্ব শ্রেণি-পেশার মানুষসহ স্বয়ং গ্রামপ্রধান মো. আব্দুল মজিদ সরকার।

ঘটনাটি ঘটেছে আজ রবিবার সকালে তানোর পৌর এলাকার রায়তন আকচা গ্রামে। ঘটনাস্থলে মাদক ব্যবসায়ী মোসা. আঙ্গুরা হাসুয়া দিয়ে আঘাত করলে স্থানীয় আনোয়ার নামে এক কলেজপড়ুয়া যুবক আহত হন।

আটকৃতরা হলেন রায়তন আকচা গ্রামের জামাই ও মাদক ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম (৩৮), তার স্ত্রী মোসা. আঙ্গুরা (২৫) ও মাদকসেবী একই গ্রামের লেয়ার এর ছেলে মো. রায়হান সরদার (২৫) ও মোহনপুর উপজেলার পিয়ারপুর গ্রামের মৃত আরজেদ এর ছেলে রেজাউল (২৭)।

রবিবার দুপুর ১টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মামুনুর রশীদ তাঁর কার্যালয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে আটককৃত প্রত্যেককে দুই বছর করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসীর তথ্য থেকে জানা যায়, রবিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে একটি আটোসহ দুই মাদকসেবী রায়তন আকচায় শফিকুলের বাসায় হেরোইন সেবনের জন্য আসলে গ্রামের যুবকরা খবর পেয়ে একত্রিত হয়ে ২ গ্রাম হেরোইনসহ হাতেনাতে ওদের ধরে ফেলে। এ সময় শরিফুলের স্ত্রী আঙ্গুরা হাসুয়া নিয়ে আনোয়ার নামে এক যুবকের হাতে আঘাত করলে তিনি আহত হন। পরে গ্রামের লোকজন এসে গণধোলাই দিয়ে ওদের পুলিশে সোপর্দ করেন।

এ নিয়ে রায়তন আকচা গ্রামপ্রধান মো. আব্দুল মজিদ সরদার জানান, আমাদের গ্রামের যুবকরা যে কাজটি করলো তা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। আমরা এর আগেও মাদক ব্যবসায়ী শফিকুল ও তার স্ত্রী আঙ্গুরাকে নিষেধ করেছি মাদক ব্যবসা না করার জন্য। কিন্তু আমাদের গ্রামের এক মেম্বারের সহযোগিতায় ওরা এ ব্যবসা করছে। আমরা ইউএনও স্যারের এই রায়ে সন্তুষ্ট।


মন্তব্য