kalerkantho


জেপি প্রার্থীর গাড়ি ভাঙচুর

ভাণ্ডারিয়ায় নির্বাচনী সহিংসতায় আহত ১০

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, পিরোজপুর   

১৮ মার্চ, ২০১৬ ১৯:২৭



ভাণ্ডারিয়ায় নির্বাচনী সহিংসতায় আহত ১০

পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় নির্বাচনী সহিংসতায় জাতীয় পার্টির (জেপি) ১০ কর্মী-সমর্থক আহত হয়েছেন। আওয়ামী লীগ প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা জেপি প্রার্থীর সমর্থকদের ওপর হামলা চালিয়ে তাদেরকে আহত করেছে  বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ সময় জেপি প্রার্থীর একটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। উপজেলার ইকড়ী ও ধাওয়া ইউনিয়নে গতকাল বৃহস্পতিবার গভীর রাতে পৃথক হামলার ঘটনা ঘটে।

ইকড়ী ইউপি নির্বাচনে জেপি চেয়ারম্যান প্রার্থী আবদুল হাই হাওলাদার অভিযোগ করে বলেন, "বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে আমার কয়েকজন কর্মী প্রচারণা শেষে ৫ নম্বর ওয়ার্ডের এসাহাক মাস্টারের বাড়ির পূর্ব পাশে সেতুর পার হচ্ছিল। এ সময় আওয়ামী লীগ সমর্থিত  চেয়ারম্যান প্রার্থী হুমায়ূন কবীর তাঁর ৪০-৫০ জন সমর্থক নিয়ে ওই সেতুর কাছে এসে ফাঁকা গুলি ছুড়ে ত্রাস সৃষ্টি করেন। এ সময় আওয়ামী লীগের সমর্থকরা জেপি প্রার্থীর পাঁচ সমর্থককে পিটিয়ে আহত করে। আহতদের মধ্যে মামুন ও বাবুল নামে দুই কর্মীকে ভাণ্ডারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

অপরদিকে উপজেলা ধাওয়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ সমর্থিত  চেয়ারম্যান প্রার্থী বাদশা মৃধা ও তাঁর কর্মীদের হামলায় জাতীয় পার্টির  (জেপি) চেয়ারম্যান প্রার্থীর পাঁচ কর্মী আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় একটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। গতকাল  বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে স্থানীয় ছাদনা বাজারের কাছে এ ঘটনা ঘটে।

আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বাদশা মৃধার সমর্থকদের হামলায় আহত জেপি প্রার্থীর গাড়িচালক আহসান হাবিব (৫০), জুয়েল কাজী (২২), ইউসুফ মৃধা (৩০), রেজাউল করিম সোহাগ (৩৫) এবং  কাউছার বেপারীকে (২৪) ভাণ্ডারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি  করা হয়েছে।

ভাণ্ডারিয়া থানার ওসি মো. কামরুজ্জামান বলেন, "ইকড়ীতে দুই পক্ষে  সংঘর্ষের খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ পরিস্থতি নিয়ন্ত্রণে আনে। অপরদিকে, হামলায় ভাঙচুর করা গাড়িটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। তবে এসব ঘটনায় কেউ মামলা দায়ের করেনি। "

 


মন্তব্য