kalerkantho


নীলফামারীতে পৃথক অগ্নিকাণ্ডে পাঁচ পরিবারের ১৭ ঘর ছাই

নীলফামারী প্রতিনিধি   

১৮ মার্চ, ২০১৬ ১৬:২২



নীলফামারীতে পৃথক অগ্নিকাণ্ডে পাঁচ পরিবারের ১৭ ঘর ছাই

নীলফামারীর জলঢাকা ও কিশোরগঞ্জ উপজেলায় পৃথক অগ্নিকাণ্ডে পাঁচ পরিবারের ১৭ ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতের ওই অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ হয়ে মারা গেছে চারটি গরু ও দুটি ছাগল।

এলাকাবাসী জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১টার দিকে কিশোরগঞ্জ উপজেলার রণচণ্ডি ইউনিয়নের বসুনিয়াপাড়া গ্রামের একরামূল হকের বাড়িতে বিদ্যুতের শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে তিন পরিবারের ১১টি ঘর রক্ষিত মালামালসহ পুড়ে যায়। খবর পেয়ে জলঢাকা ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আগুনে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ১০ লক্ষাধিক টাকা বলে তারা জানান।

অপরদিকে, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে জলঢাকা উপজেলার মীরগঞ্জ ইউনিয়নের পাঠানপাড়া নদীরপাড় গ্রামে অগ্নিকাণ্ডে অহিদুল ইসলাম (৪৫) ও তার ছোট ভাই আব্দুল গফফারের (৪০) ছয়টি ঘর রক্ষিত ৫০ মণ তামাক ও অন্যান্য মালামালসহ পুড়ে যায়। ওই গ্রামের যুবলীগ নেতা হুকুম আলী জানান, অহিদুল ইসলামের রান্না ঘর থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়ে দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসীর চেষ্টায় আগুন নিযন্ত্রণে আসে। এ সময় অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায় চারটি গরু ও দুটি ছাগল।

জলঢাকা ফায়ার সার্ভিসের মমতাজুল ইসলাম বলেন, "রাত ১টা ২৫ মিনিটে কিশোরগঞ্জের রণচণ্ডী ইউনিয়নের বসুনিয়াপাড়া গ্রামে অগ্নিকাণ্ডের খবর পাই। সেখানে দ্রুত পৌঁছে তিন ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। ধারণা করা হচ্ছে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আনুমানিক দুই লক্ষাধিক টাকা। এ ছাড়া জলঢাকার পাঠানপাড়া নদীরপাড় গ্রামে অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে আমরা রওনা দেওয়ার প্রাক্কালে আগুন নিভে যাওয়ার কথা জানান তারা। জানা গেছে সেখানে ছয়টি ঘর আসবাবপত্রসহ পুড়ে গেছে। অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা গেছে দুটি গরু। "

 


মন্তব্য