kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ জানুয়ারি ২০১৭ । ১১ মাঘ ১৪২৩। ২৫ রবিউস সানি ১৪৩৮।


সিরাজগঞ্জে ইউপি নির্বাচন নিয়ে দুই পক্ষে সংঘর্ষ, আহত ১০

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি    

১৭ মার্চ, ২০১৬ ১৬:১৬



সিরাজগঞ্জে ইউপি নির্বাচন নিয়ে দুই পক্ষে সংঘর্ষ, আহত ১০

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ১০ নম্বর সয়দাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বর্তমান চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে কয়েকজনকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ সময় আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান সপ্তিক আহমদ মিঠুর বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে টিয়ার শেল ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এলাকাবাসী জানায়, আগামী ৩১ মার্চ সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নবিদুল ইসলামের সমর্থকরা প্রতীক বরাদ্দ নিয়ে কাজ চালিয়ে আসছিলেন। কিন্তু বর্তমান চেয়ারম্যান সপ্তিক আহমদ মিঠু সীমান জটিলতা দেখিয়ে নির্বাচন স্থাগিতের আবেদন জানিয়ে হাইকোর্টে একটি রিট করেন।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে এলাকায় খবর ছড়িয়ে পড়ে যে হাইকোর্ট এই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন স্থাগিত ঘোষণা করেছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকরা ক্ষুব্ধ হয়ে বর্তমান চেয়ারম্যানের কড্ডার মোড়ের বাড়িতে হামলা চালায়। এর কিছুক্ষণ পর বর্তমান চেয়ারম্যানের সমর্থকরাও লাঠিসোঁটা নিয়ে প্রতিপক্ষের লোকজনকে ধাওয়া করলে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষ চলাকালে ইটপাটকেলের আঘাতে উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বর্তমান চেয়ারম্যান সপ্তিক আহম্মেদ মিঠু বলেন, "সয়দাবাদ ইউনিয়নের সীমানা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ রয়েছে। এ-সংক্রান্ত বিষয়ে ইউনিয়নবাসীর পক্ষে পরিষদের সকল সদস্য রেজিলিউশন করে সম্প্রতি উচ্চ আদালত বরাবর রিট করেন। " আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী নবিদুল ইসলাম বলেন, "মিঠু চেয়ারম্যান কারসাজি করে আদালত বরাবর রিট করার ফলে নির্বাচন স্থগিত হওয়ায় বিক্ষুব্ধ লোকজন ও ইউনিয়নবাসী তাঁর বাসভবন ঘেরাও করে। এ সময় বিক্ষুব্ধদের সঙ্গে চেয়ারম্যান সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়।

এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি হাবিবুল ইসলাম জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। পুনরায় সংঘর্ষের ঘটনা এড়াতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

 


মন্তব্য