kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ধামরাইয়ে এক রাতে আট বাড়িতে ডাকাতি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ মার্চ, ২০১৬ ১৭:১৮



ধামরাইয়ে এক রাতে আট বাড়িতে ডাকাতি

ধামরাইয়ের দুটি গ্রামে এক রাতে আট বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ডাকাতদের মারধর ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে পাঁচজন আহত হয়।

একই সঙ্গে লুট করা হয় নগদ টাকাসহ স্বর্ণালংকার ও মোবাইল ফোন সেট। গতকাল শনিবার গভীর রাতের এ ঘটনায়  ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ।

এ বিষয়ে এলাকাবাসী ও জনপ্রতিনিধিরা জানায়, শনিবার গভীর রাতে উপজেলার কুল্লা ইউনিয়নের সীতি গ্রামের রতন সরকারের বাড়ির  ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে একদল ডাকাত। এরপরে তারা পরিবারের সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মারপিট শুরু করে। এতে গুরুতর আহত হয় রতন সরকার ও তার ছেলে শংকর সরকার। পরে ওই বাড়ি থেকে ১২ হাজার টাকা ও দেড় ভরি স্বর্ণালংকার লুট করে ডাকাতরা। একইভাবে নরেশ চন্দ্র সরকারের বাড়িতে হানা দেয় ডাকাত দল। সেখানেও ডাকাতরা অস্ত্রের মুখে পরিবারের সবাইকে জিম্মি করে ৩০ হাজার টাকা ও আড়াই ভরি স্বর্ণালংকার ও ৩৫ ভরি রোপা লুট করে নিয়ে যায়। এ সময় নরেশের স্ত্রীর মাথায় ও হাতে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে তারা। এরপরে ডাকাতরা হানা দেয় সাধন সরকারের বাড়িতে। ওই বাড়ি থেকে ১ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার লুট করে। এ ছাড়াও একই গ্রামের পরিমল সরকারের বাড়িতে ডাকাতরা হানা দিলেও কিছু নিতে পারেনি।

তা ছাড়াও ওই রাতেই একই ইউনিয়নের লাড়ুয়াকুণ্ড গ্রামের খোরশেদ আলমের বাড়িতে হানা দেয় ডাকাত দল। এ সময় ডাকাতদের উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে খোরশেদ আলম গুরুতর আহত হয়। তাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। কিন্তু তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। ওই বাড়ি থেকে তিন ভরি স্বর্ণালংকার ও ১০ ভরি রোপার অলংকার ও তিন হাজার টাকা লুট করে ডাকাতরা। এরপরে একই গ্রামের সমেজ উদ্দিনের ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে ডাকাত দল। এ সময় তারা অস্ত্রের মুখে পরিবারের সবাইকে জিম্মি করে হাত-পা বেধে ফেলে। পরে তারা সেখান থেকে দুটি মোবাইল ফোন,১০ হাজার টাকা,দুটি স্বর্ণের চেইন লুট করে নিয়ে পালিয়ে যায়। সর্বশেষে পরেশের বাড়িতেও হানা দেয় ডাকাত দল। ওই বাড়ি থেকেও ডাকাতরা ১০ হাজার টাকা, দুটি মোবাইল ফোন ও একটি স্বর্ণের চেইন লুট করে।

ধামরাই থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এ ঘটনায় ধামরাই থানা পুলিশের এসআই সেকেন্দার আলী শেখ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তবে কোন মামলা হয়নি।


মন্তব্য