পার্বতীপুরে শিক্ষকের থাপ্পরে শ্রবণ-335188 | সারাবাংলা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বুধবার । ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৩ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৫ জিলহজ ১৪৩৭


পার্বতীপুরে শিক্ষকের থাপ্পরে শ্রবণ শক্তি হারাল স্কুলছাত্রী

পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি   

১২ মার্চ, ২০১৬ ২৩:১৪



পার্বতীপুরে শিক্ষকের থাপ্পরে শ্রবণ শক্তি হারাল স্কুলছাত্রী

দিনাজুপরের পার্বতীপুরে শিক্ষকের থাপ্পরে দুটি কানের শ্রবণ শক্তি হারাল এক স্কুলছাত্রী। তার দু’কান ও নাক দিয়ে রক্ত ঝড়ার পরে তাকে উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার ৬ নম্বর মোমিনপুর ইউনিয়নের দোয়ানিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির ছাত্রী মুনিরা খাতুন (১১) অন্যান্য দিনের মত গত বুধবার স্কুলে উপস্থিত হয়। ওই দিন সে ইংরেজি পড়া দিতে না পারায় বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক তোবারক হোসেন মুনিরাকে সজোরে দুই কানে থাপ্পর দিলে তার উভয় কান ও নাক দিয়ে রক্ত ঝরতে শুরু করে। এ ঘটনা জানতে পেরে মেয়ের বাবা মোকছেদুল হক তার মেয়েকে উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সেখানে নাক, কান ও গলা বিশেষজ্ঞ ডাঃ মাহবুবুল আলম চৌধুরী স্কুলছাত্রী মুনিরার প্রাথমিক চিকিৎসা দেন।

মুনিরার বাড়ী পার্বতীপুর উপজেলার মোমিনপুর ইউনিয়নের দোয়ানিয়া মাঝাপাড়া গ্রামে। মুনিরার বাবা মোকছেদুল হক জানান, তার মেয়ে এখন কোন কিছু শুনতে পায় না। শুধুমাত্র ইশারায় তাকে বুঝাতে হচ্ছে।

এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে দোয়ানিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছাদেকুল ইসলাম বলেন, ইতিমধ্যে ম্যানেজিং কমিটিকে বিষয়টি অভিভাবকগণ জানিয়েছেন। অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক তোবারক হোসেন তার অপরাধের কথা গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে স্বীকার করেছেন।

এ ব্যাপারে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সহ-সভাপতি মোহসিন আলী জানান, সরকারের নির্দেশনা রয়েছে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মারধর তো দূরের কথা, কাউকে বকাঝকাও করা যাবে না। তাই সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের উপযুক্ত শাস্তি হওয়া দরকার বলে মনে করেন তিনি।

এদিকে এ প্রসঙ্গে পার্বতীপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আখতারুল ইসলাম বলেন, কোন অভিভাবক অথবা ম্যানেজিং কমিটির পক্ষ থেকে তাকে বিষয়টি জানানো হয়নি। একই কথা বলেছেন সহকারী শিক্ষা অফিসার ও বিদ্যালয়ের ক্লাষ্টার এসএম কামরুজ্জামান।

 

মন্তব্য