kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সিলেটের কৃষিতে আশার আলো, লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে বোরো চাষ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ মার্চ, ২০১৬ ১২:২৩



সিলেটের কৃষিতে আশার আলো, লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে বোরো চাষ

সিলেট বিভাগে প্রতিবছর রবি মৌসুমে ১ লাখ ৬৫ হাজার হেক্টর জমি অনবাদি থাকতো। সরকারের কৃষিবান্ধব উদ্যোগের কারণে দিন দিন অনাবাদি জমির পরিমাণ কমছে।

চলতি রবি মৌসুমে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার হেক্টর অনবাদী জমি বোরো চাষের আওতায় এসেছে।

সিলেট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানিয়েছে, এবার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে বোরো চাষাবাদ হয়েছে। বিভাগে চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৯৫৬ হাজার হেক্টর জমিতে এবার চাষাবাদ হয়েছে। যা গত বছরের চাষাবাদের তুলনায় ৩৪৪৩ হেক্টর ও চলতি বছরের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে প্রায় ৮ হাজার বেশি।

বিভাগের হাওরবেষ্টিত সুনামগঞ্জ জেলায় চাষাবাদের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি। এ জেলায় লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ লাখ ২ হাজার ২শ’ ৩৫ হেক্টর, চাষাবাদ হয়েছে ২ লাখ ২০ হাজার ৮০৫ হেক্টর জমিতে।
সিলেট ও হবিগঞ্জ জেলাতেও লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে চাষাবাদ হয়েছে। ৭৬ হাজার ৬৫৫ হেক্টর জমিতে বোরো চাষাবাদ, অথচ, চাষা হয়েছে ৭৮ হাজার ৭৯৫ হেক্টর জমিতে। আর হবিগঞ্জ জেলায় ১ লাখ ১৩ হাজার ২০ হেক্টর জমিতে বোরো চাষ হয়েছে। এ জেলায় লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ লাখ ১ হাজার ৪০২ হেক্টর। এ ছাড়াও মৌলভীবাজার জেলায় ৫২ হাজার ৩৩৬ হেক্টর জমিতে বোরো চাষ হয়েছে। বিভাগের মধ্যে এ জেলায় বোরো চাষের পরিমাণ সবচেয়ে কম।

সিলেট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানিয়েছে, ফসল আবাদে কৃষকের আগ্রহ, সরকারের কৃষিবান্ধব সহযোগিতা ও প্রযুক্তির ব্যবহারের ফলে সিলেটে বোরো চাষের পরিমাণ বেড়েছে। বিশেষ করে সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জের হাওরাঞ্চলে বোরো চাষে কৃষকরা আগ্রহী হয়ে উঠছেন। তাই, হাওর এলাকায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি চাষাবাদ হয়েছে।

কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, গত আট বছরে বোরো আবাদে জমির পরিমাণ বেড়েছে ৬৩ হাজার হেক্টর। ২০০৭-০৮ সালে চার জেলায় বোরো চাষাবাদ হয়েছিল ৪ লাখ ১ হাজার ৬৫৮ হেক্টর জমিতে। আর এবার চাষাবাদ হয়েছে ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৯৫৬ হেক্টর জমিতে।

সিলেট বিভাগীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানিয়েছে, বিভাগে ২০১৩-২০১৪ সালে আবাদ হয় ৪ লাখ ৫১ হাজার ৮৬৪ হেক্টর জমিতে, ২০১২-১৩ সালে ৪ লাখ ২৭ হাজার ৫৮৯ হেক্টর জমি আবাদ হয়েছিল। ২০১১-২০১২ সালে ৪ লাখ ২৯ হাজার ৫১১ হেক্টর জমি, ২০১০- ২০১১ সালে ৪ লাখ ১৯ হাজার ৩৩৬ হেক্টর জমি আবাদ হয়। ২০০৯-২০১০ সালে আবাদ ৪ লাখ ২০ হাজার ৯৭০ হেক্টর জমি হয়েছিল। ২০০৮-২০০৯ সালে আবাদ ৪ লাখ ২৪ হাজার ৫৪১ হেক্টর জমি হয়েছিল। ২০০৭-২০০৮ সালে আবাদ ৪ লাখ ১ হাজার ৬৫৮ হেক্টর জমি হয়েছিল।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ ড. মো. মামুন-উর রশিদ বাসসকে জানান, বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে সিলেটের কৃষি জমি বাড়ানো হচ্ছে। কৃষকদের মাঝে প্রশিক্ষণ ও নানা সচেতনতামূলক প্রচারণার ফলে সিলেটে বোরোতে আবাদ দিনদিন বাড়ছে।

চলতি মৌসুমে ১০২ ভাগ চাষাবাদ হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এটা সম্ভব হয়েছে। সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে কৃষকরা ধান চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছেন। আগামী বছরগুলোতেও উৎপাদনের পরিমাণ আরো বাড়বে বলে আশা করা যায়।

মামুন রশিদ বলেন, ধানের চারা বড় হয়ে উঠছে। সবুজ মাঠে এখন সম্ভাবনার হাতছানি। কৃষকদের মুখে হাসি ধরে রাখতে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
বাসস


মন্তব্য