kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দেড় মাস পর

কেরানীগঞ্জের সেই চার ইউনিয়নে গ্যাস সরবরাহ শুরু

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

১০ মার্চ, ২০১৬ ১৬:২৭



কেরানীগঞ্জের সেই চার ইউনিয়নে গ্যাস সরবরাহ শুরু

প্রায় দেড় মাস বন্ধ থাকার পর অবশেষে ঢাকার কেরানীগঞ্জ উপজেলার শাক্তা, কলাতিয়া, তারানগর এবং হযরতপুর ইউনিয়নে গ্যাস সরবরাহ শুরু হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে এসব এলাকায় গ্যাস সরবরাহ শুরু হয়।

কেরানীগঞ্জের পশ্চিমাংশে গ্যাস সরবরাহের জন্য তুরাগ নদীর তলদেশে থাকা প্রধান সঞ্চালন পাইপটি সংস্কারের উদ্যোগ নিয়েছে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ।

তিতাস কর্তৃপক্ষের দাবি, গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ওই পাইপ দিয়ে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়া হয়। তবে এলাকাবাসীর দাবি, আরো আগে থেকেই গ্যাস বন্ধ করে রাখা হয়েছে। মাস পেরিয়ে গেলেও গ্যাস সঞ্চালন শুরু না করায় বিপাকে পড়েছেন কেরানীগঞ্জের কলাতিয়া, তারানগর, হযরতপুর, শাক্তা ইউনিয়ন বসবাসরত অর্ধলক্ষ পরিবার। এ ঘটনায় কালের কণ্ঠসহ বেশ কয়েকটি জাতীয় দৈনিকে একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশের পর চাপে পড়ে গ্যাস সঞ্চালন শুরু করেছে তিতাস কর্তৃপক্ষ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তিতাস গ্যাসের জিনজিরা কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, আমিনবাজারের তুরাগ নদীর তলদেশ দিয়ে যে সঞ্চালন পাইপ দিয়ে কেরানীগঞ্জে গ্যাস সরবরাহ করা হয়, সেটি অনেক পুরনো এবং বিভিন্ন স্থানে ছিদ্রযুক্ত হয়ে পড়েছে। ফলে দুর্ঘটনার আশঙ্কায় সঞ্চালন পাইপটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয় তিতাসের সিস্টেম অপারেশন বিভাগ।

তবে সংস্কার কাজ শেষ হলেও কর্তৃপক্ষ ওই সঞ্চালন লাইনে গ্যাস সরবরাহ করতে বিলম্ব করছিল। পরে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় এ-সংক্রান্ত একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ায় নিতান্তই চাপে পড়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ গ্যাস সঞ্চালন শুরু করতে বাধ্য হয়। শাক্তা, কলাতিয়া, তারানগর ও হযরতপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের একাধিক বাসিন্দা জানান, আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই গ্যাসের চুলায় শো শো আওয়াজ তুলে গ্যাস আসতে থাকে। এখন তাঁরা গ্যাসের চুলায় স্বতঃস্ফূর্তভাবে রান্না করতে পারছেন। তাদের দাবি, গ্যাস এসেছে তবে আবার যেন চলে না যায়।

তিতাস গ্যাস মেট্রো বিক্রয় বিভাগ জোন-৫ জিনজিরা কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক সাকির আহমেদ বলেন, "বৃহস্পতিবার সকাল থেকে উপজেলার পশ্চিমাংশে গ্যাস সরবারহ শুরু হয়েছে। দীর্ঘ এক মাস বন্ধ থাকার পর ওই সব এলাকায় আমরা গ্যাস সরবরাহ করতে পেরেছি। "

 


মন্তব্য