kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


লঞ্চ দুর্ঘটনা : একই পরিবারের তিনজন নিহত, শোকার্ত গ্রাম বাইনসামের্ত

বরগুনা প্রতিনিধি   

৬ মার্চ, ২০১৬ ১৭:১২



লঞ্চ দুর্ঘটনা : একই পরিবারের তিনজন নিহত, শোকার্ত গ্রাম বাইনসামের্ত

চাঁদপুরের মেঘনা নদীতে লঞ্চ দুর্ঘটনায় মা, মেয়ে ও ছেলেসহ একই পরিবারের তিনজন নিহত ও একজন আহত হয়েছে। শনিবার (৫ মার্চ) দিবাগত রাত ১টার দিকে বরগুনা থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে মেঘনা নদীর মিয়ারচর নামক স্থানে বিপরীত দিক থেকে আসা এমভি জাহিদ নামের অপর একটি লঞ্চের সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন : বরগুনা সদর উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের বাইনসামের্ত গ্রামের নিজাম হাওলাদারের স্ত্রী তাসনিমা বেগম (৪৫), ছেলে হিরণ (২২) ও মেয়ে জান্নাত (৭)। এ ঘটনায় একই পরিবারের অপর কন্যাশিশু নাসরিন (১৪) গুরুতর আহত হলে তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ দিকে একই পরিবারের তিনজনের মৃত্যুতে বরগুনার বাইনসামের্ত গ্রামে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। আশপাশের গ্রামবাসী নিহতদের খবর জানতে নিজাম হাওলাদারের বাড়িতে ভিড় করছেন। অন্যদিকে শোকবিহ্বল স্বজনরা প্রতীক্ষায় রয়েছেন কখন আসবে স্বজনদের লাশ। স্থানীয় ইউপি সদস্য দুলাল মেম্বার জানান, ঢাকায় নিহতদের লাশের ময়নাতদন্ত শেষে বরগুনা আনা হবে। নিহতদের লাশ বরগুনা পৌছতে আরও ১০/১৫ ঘণ্টা লাগবে বলে তিনি জানান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বরগুনার বাইনসামের্ত গ্রামের নিজাম হাওলাদার দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে ঢাকায় শ্রমিকের কাজ করে স্ত্রী-সন্তানসহ জীবিকা নির্বাহ করতেন। দুই সপ্তাহ আগে নিজাম হাওলাদার তার অসুস্থ মাকে দেখতে স্ত্রী-সন্তানসহ গ্রামের বাড়ি আসেন। গত শনিবার নিজাম হাওলাদার সপরিবারে বরগুনা থেকে ঢাকা যাওয়ার উদ্দেশে সম্রাট-৩ লঞ্চে ওঠেন। সম্রাট-৩ লঞ্চের সুপারভাইজার জাকির হোসেন জানান, বরগুনা থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে চাঁদপুরের মেঘনা নদীতে মিয়ার চর এলাকায় অপর দিক থেকে আসা রাঙাবালিগামী এমভি জাহিদ-৪ লঞ্চ সম্রাট-৩কে ধাক্কা দিলে সম্রাট লঞ্চের পিছনের অংশ দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এ সময় ঘটনাস্থলেই তাসনিম বেগম ও তার মেয়ে জান্নাতের মৃত্যু হয়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা নেওয়ার পথে ছেলে হিরণেরও মৃত্যু হয়।


মন্তব্য