মেহেরপুরে পুলিশ কর্মকর্তার ছেলেসহ-332493 | সারাবাংলা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বুধবার । ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৩ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৫ জিলহজ ১৪৩৭


মেহেরপুরে পুলিশ কর্মকর্তার ছেলেসহ আটক ৯ জন কারাগারে

মেহেরপুর প্রতিনিধি   

৫ মার্চ, ২০১৬ ১৮:৩১



মেহেরপুরে পুলিশ কর্মকর্তার ছেলেসহ আটক ৯ জন কারাগারে

মেহেরপুর সদর উপজেলার গোভীপুর গ্রামের কবরস্থান সংলগ্ন একটি বাড়িতে গোপন বৈঠক চলাকালে বোমাসহ আটক পুলিশ কর্মকর্তার ছেলেসহ জামায়াত-শিবিরের ৯ কর্মীকে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। এদের মধ্যে মীর ওয়ালিদ সেতু মেহেরপুর পুলিশ লাইনে কর্তব্যরত এসআই (আর্মড ব্রাঞ্চ) মীর খসরুল আলমের ছেলে বলে জানা গেছে।

আটক সেতু ছাড়া অন্যান্যরা হলেন-গাইবাদ্ধা জেলার পূর্ব বাছাহাটি গ্রামের সুন্দর আলীর ছেলে মকছেদ আলী (৩২), মেহেরপুর সদর উপজেলার গোভীপুর গ্রামের ছানা উল্লাহর ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২৬), ছবিদার আলীর ছেলে ওয়ালিদ হোসেন (১৮), আনোয়ারুল ইসলামের ছেলে আশানুর রহমান সজিন (১৬), মিজানুর রহমানের ছেলে নাজমুল ইসলাম (১৯), কেছমত আলীর ছেলে আরজেন আলী (১৬), লাল্টু মিয়ার ছেলে সোহাগ আলী (১৯) এবং একই উপজেলার বুড়িপোতা গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে শাহীন ইসলাম (১৯)

তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে আজ শনিবার দুপুরে মেহেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, পুলিশের কাছে অপরাধীই বড় ব্যাপার, তার পরিচয়টা বিষয় না। তাই সকলকেই ১৯৭৪ সালের স্পেশাল পাওয়ার এ্যাক্ট ১৫(৩)  এবং ১৯০৮ সালের বিষ্ফোরক উপাদানাবলী আইনের ৪ ধারায় অপরাধ দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে গতকাল শুক্রবার রাতে মেহেরপুর সদর থানায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার হামিদুল আলম সাংবাদিকদের জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায় যে সদরের গোভীপুর গ্রামের কবরস্থানের পাশের ডাবু নামক এব ব্যক্তির বাড়িতে জামায়াত-শিবিরের গোপন বেঠক চলছে। খবর পেয়ে সদর থানার ওসি ইকবাল বাহার চৌধুরীকে নির্দেশ দিলে তার নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম সেখানে অভিযান চালিয়ে ৯ জন শিবিরকর্মীকে আটক করে। পরে সেখান থেকে ৪টি তাজা বোমা উদ্ধার করা হয়।

তিনি বলেন, বড় ধরনের নাশকতা ঘটানোর জন্য শিবির কর্মীরা গোপন বৈঠক করছিল বলে প্রাথমিক ধারণা করা হচ্ছে। তবে আটক ব্যক্তিদের দলীয় কোনো পদের কথা বলতে পারেননি তিনি।

এদিকে, শিবিরের জেলা সভাপতি মো. শাকিল হোসেন এক বিজ্ঞপ্তিতে দাবি করেছেন আটককৃতরা কেউ জামায়াত-শিবিরের রাজনীতির সাথে জড়িত নয়। আটকৃতদের সম্পর্কে সঠিক তথ্য উদঘাটন করার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

 

 

 

মন্তব্য