kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


শেরপুরে চাঞ্চল্যকর শিশু রাহাত হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ, এ মাসেই রায়

শেরপুর প্রতিনিধি :   

৩ মার্চ, ২০১৬ ২০:৩১



শেরপুরে চাঞ্চল্যকর শিশু রাহাত হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ, এ মাসেই রায়

শেরপুরে চাঞ্চল্যকর শিশু রাহাত হত্যা মামলার ২৭ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। ৩ মার্চ বৃহস্পতিবার দুপুরে শেরপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. সায়েদুর রহমান খান মামলার ময়না তদন্তকারী চিকিৎসক ডা. মো. গোলাম মোস্তফা, ডিএনএ বিশেষজ্ঞ মো. আশরাফুল আলম, দুই তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার উপ-পরিদর্শক রহুল আমিন, বশির আহম্মেদ বাদল ও আরেক সাক্ষী এএসআই আনোয়ারের সাক্ষ্য ও জবানবন্দী গ্রহণ করেন।

এসময় হাজতী আসামী আসলাম বাবু, রবিন মিয়া, আব্দুল লতিফ ও ইমরান হোসেন উপস্থিত ছিল। পরে ট্রাইব্যুনালের বিচারক আগামী ৮ মার্চ আসামী পরীক্ষার জন্য দিন ধার্য করেন।

ট্রাইব্যুনালের পিপি অ্যাডভোকেট গোলাম কিবরিয়া বুলু জানান, বৃহস্পতিবার শিশু রাহাত হত্যা মামলার ২৭ সাক্ষীরই সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। আসামী পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর স্বল্প সময়ের মধ্যে যুক্তিতর্কের জন্য আদালত তারিখ নির্ধারণ করবেন। যুক্তিতর্ক শেষে এ মাসেই মামলার রায় ঘোষনা করা হবে।

প্রসঙ্গত: গত বছরের ২ আগষ্ট বিপ্লব-লোপা মেমোরিয়াল স্কুলের প্রথম শ্রেণির ছাত্র শহরের গৃর্দানারায়নপুর মহল্লার কাঠ ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম খোকন মিয়ার একমাত্র ছেলে রাহাতকে তার আপন খালু আব্দুল লতিফ ও তার সহযোগীরা অপহরন করে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। কিন্তু মুক্তিপণ দাবির আগেই শিশুটিকে মধুটিলা ইকোপার্ক সংলগ্ন একটি পাহাড়ি টিলায় নিয়ে গলাটিপে হত্যা করে গহীন জঙ্গলে ফেলে দেওয়া হয়। অপহরণের ৬ দিন পর ওই পাহাড়ি টিলার জঙ্গল থেকে শিশুটির কঙ্কাল উদ্ধার করে পুলিশ। পরে গ্রেপ্তার হওয়া আসামি লতিফ, আসলাম বাবুসহ অপর আসামীরা হত্যার সাথে তাদের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেয়।


মন্তব্য