টাঙ্গাইলে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা-330867 | সারাবাংলা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৪ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৬ জিলহজ ১৪৩৭


টাঙ্গাইলে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১ মার্চ, ২০১৬ ১৫:৩৩



টাঙ্গাইলে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলায় সহিদা বেগম ফারজানা (২৫) নামে এক গৃহবধূকে শ্বাস রোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার বেলতৈল গ্রামে সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সহিদা বেগম ফারজানা একই উপজেলার শুভূল্যা গ্রামের ব্যবসায়ী ফারুক মিয়ার মেয়ে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে স্বামী মো. সেলিম রেজা ও শাশুড়ি মনোয়ারা বেগমকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, ২ বছর আগে বেলতৈল গ্রামের আব্দুল খালেক মিয়ার বড় ছেলে সেলিম রেজার সঙ্গে সহিদা বেগম ফারজানার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই দাম্পত্য জীবনে প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লেগে থাকত। মির্জাপুর থানার এসআই মো. আলমগীর হোসেন জানান, রাতেই ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়। ফারজানার বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে স্বামী ও শাশুড়িকে আটক করা হয়েছে।

এসআই জানান, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ টাঙ্গাইল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিহতের বাবা ফারুক মিয়া জানান, সোমবার সকালে ফারজানা মাকে ফোন দিয়ে বলেন, আপনার শাশুড়ি আমার সঙ্গে ঝগড়া করছে। ফারুক মিফ অভিযোগ করেন, রাতে তার মেয়েকে পিটিয়ে ও শ্বাস রোধ করে হত্যার পর ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। নিহত ফারজানার শাশুড়ি জানান, তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়েছে। একপর্যায় ফারজানা তাকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। পরে তিনিও ফারজানাকেও ধাক্কা মারেন। সন্ধ্যার পর ফারজানা বসত ঘরসংলগ্ন টয়লেটের বেড়ায় ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরে তারা ওড়না কেটে তার লাশ নামান।

 

মন্তব্য