kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


যুবদলের কমিটি ঘোষণার জের

কক্সবাজারে বিএনপি কার্যালয়ে তালা, ককটেল বিস্ফোরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার    

১ মার্চ, ২০১৬ ১০:২২



কক্সবাজারে বিএনপি কার্যালয়ে তালা, ককটেল বিস্ফোরণ

কক্সবাজার জেলা যুবদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে তালা লাগিয়ে দিয়েছে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। গতকাল সোমবার রাত ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় তারা ১০টির বেশি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। তবে এ ঘটনায় কেউ হতাহত হননি।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কক্সবাজার জেলা শহরের শহীদ সরণিতে অবস্থিত জেলা বিএনপির কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। কক্সবাজার সদর থানার ওসি মো. আসলাম হোসেন জানান, রাতে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে হট্টগোল আর ককটেল বিস্ফোরণের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে যুবদলের বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা সরে পড়েন।

এ ঘটনার আগে যুবদলের শতাধিক বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মী জেলা বিএনপির  কার্যালয়ে এক প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে। জেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সানাউল্লাহ আবুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য দেন কক্সবাজার পৌর যুবদলের সভাপতি মসউদুর রহমান মাসুদ ও সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সোহেল, জেলা যুবদল নেতা মসিউর রহমান জুয়েল, জসিম উদ্দিনসহ বিভিন্ন ইউনিটের শতাধিক বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।    

কক্সবাজার পৌর যুবদলের সভাপতি মসউদুর রহমান মাসুদ কালের কণ্ঠকে জানান, স্বজনপ্রীতি, আত্মীয়করণ ও অর্থ লেনদেনের মাধ্যমে জেলা যুবদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিনি বলেন, "ছাত্রদল-যুবদলের কোনো কমিটিতে ছিলেন না- এমন লোকও জেলা যুবদলের কমিটিতে স্থান পেয়েছেন। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে যুবদলের বিভিন্ন কমিটিতে ছিলেন এমন অনেকেই কমিটিতে স্থান পাননি। তাছাড়া কমিটি ঘোষণার ক্ষেত্রে সিনিয়র নেতাদের পদমর্যাদাও রক্ষা করা হয়নি। এমনকি জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর জিসান উদ্দিন জিসানের গাড়িচালক নুরুল আমিনকে দপ্তর সম্পাদক করা হয়েছে। "  

যুবদল নেতা মসউদুর রহমান বলেন, "জেলা যুবদলের কমিটি আবারও পুনর্গঠন করা পর্যন্ত বিএনপি কার্যালয় তালাবদ্ধ থাকবে। সেইসঙ্গে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা যুবদলের জেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে বিএনপির কার্যালয়সহ যুবদলের যেকোনো কর্মসূচিতে অবাঞ্চিত ঘোষণা করেছেন।

প্রসঙ্গত, ১৮ মাস আগে ছৈয়দ আহমদ উজ্জলকে সভাপতি এবং জিশান উদ্দিন জিসানকে সাধারণ সম্পাদক করে যুবদলের জেলা কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রিয় কমিটি। এ ছাড়া ওই সময় কমিটিতে সহসভাপতি পদে দুইজনের এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে একজনের নামও ঘোষণা করা হয়।

এদিকে, বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের অপ্রীতিকর ঘটনা সংঘটনকে 'অন্য রকম' ষড়যন্ত্র বলে দাবি করেছেন জেলা যুবদলের সভাপতি ছৈয়দ আহমদ উজ্জল। তিনি বলেন, "পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার ক্ষেত্রে কোনো প্রকার অনিয়ম ও অনৈতিকতার আশ্রয় নেওয়া হয়নি। এক বছর আগে কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষিত পাঁচজনের কমিটির সবার সম্মতিতেই সব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এতে বিক্ষোভ প্রদর্শনকারী নেতা সানাউল্লাহ আবুও উপস্থিত ছিলেন।

জেলা যুবদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানান ওসি আসলাম। ঘটনার ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নে‌ওয়া হবে বলে জানান তিনি।

 


মন্তব্য