kalerkantho

ওয়ালটন টিভির প্যানেলে চার বছরের গ্যারান্টি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ মার্চ, ২০১৯ ১২:০৫ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ওয়ালটন টিভির প্যানেলে চার বছরের গ্যারান্টি

টেলিভিশনের প্যানেলে চার বছরের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টির ঘোষণা দিয়েছে ওয়ালটন। চলতি বছরের ২ মার্চ থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়েছে। এখন থেকে ৩২ ইঞ্চি বা তদুর্ধ্ব এলইডি টেলিভিশন কেনার পর চার বছরের মধ্যে প্যানেলে কোনো সমস্যা হলে গ্রাহকদের বিনামূল্যে প্যানেল পাল্টে দেওয়া হবে। ওয়ালটন টিভির উচ্চগুণগতমান নিশ্চিতকরণ এবং গ্রাহকদের অধিকতর সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে শ্রেষ্ঠত্বের আত্মবিশ্বাসে ওয়ালটন এই ঘোষণা দেয়।

কর্তৃপক্ষ জানায়, গাজীপুরে নিজস্ব কারখানায় বিশাল বিনিয়োগের মাধ্যমে বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির যন্ত্রপাতি স্থাপন করেছে ওয়ালটন। নিশ্চিত করা হয়েছে আন্তর্জাতিক মান। পাশাপাশি আরো গ্রাহকবান্ধব হতে এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য সময়োপযোগী পণ্য উপহার দিতে দেশের সর্ববৃহৎ টেলিভিশন গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগ গড়ে তুলেছে ওয়ালটন। যেখানে কাজ করছেন উচ্চশিক্ষিত, মেধাবী ও দক্ষ প্রকৌশলীরা। ওয়ালটন টিভির মান উন্নয়নে তারা উন্নত বিশ্বের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। যার সুফল হিসেবে এলইডি টেলিভিশনের প্যানেলে এবার দেশীয় ব্র্যান্ডটি দিচ্ছে চার বছরের গ্যারান্টি।

রবিবার (৩ মার্চ ২০১৯) রাজধানীর বসুন্ধরায় ওয়ালটন করপোরেট অফিসের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত ডিক্লারেশন প্রোগ্রামে এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হয়। এতে জানানো হয়, ওয়ালটনের যেকোনো মডেলের এলইডি টিভিতে রয়েছে ছয় মাসের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টি। থাকছে ৫ বছরের ফ্রি বিক্রয়োত্তর সেবা।

ডিক্লারেশন প্রোগ্রামে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক ইভা রিজওয়ানা, এমদাদুল হক সরকার, এসএম জাহিদ হাসান, মো. রায়হান, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেজ ইউনিট (আইবিইউ) প্রেসিডেন্ট এডওয়ার্ড কিম, ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর শাহজাদা সেলিম এবং ফিরোজ আলমসহ অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

অনুষ্ঠানে ওয়ালটন টেলিভিশনের প্রোডাক্ট ম্যানেজার মারুফ হাসান জানান, ৩২ ইঞ্চি থেকে শুরু করে ৫৫ ইঞ্চি পর্যন্ত স্মার্ট এবং নন-স্মার্ট টেলিভিশনের প্যানেলের ক্ষেত্রে এই গ্যারান্টি সুবিধা মিলবে। আর ২০ থেকে ২৮ ইঞ্চি টিভির প্যানেলে ২ বছরের গ্যারান্টি থাকবে। তবে খুব শিগগিরই সব মডেলের ওয়ালটন টিভিতে চার বছর গ্যারান্টি দিতে সক্ষম হবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বর্তমানে স্থানীয় বাজারে ওয়ালটনের রয়েছে ৩২, ৩৯, ৪৩, ৪৯ এবং ৫৫ ইঞ্চির ১৬টি বৈচিত্র্যময় মডেলের এলইডি টেলিভিশন। দাম ১৭,৫০০ টাকা থেকে ৫৯,৯০০ টাকার মধ্যে। এ ছাড়াও রয়েছে ৩২ থেকে ৫৫ ইঞ্চি পর্যন্ত ৯ মডেলের স্মার্ট টেলিভিশন। যা মিলবে ২২,৯০০ থেকে ৬৯,৯০০ টাকার মধ্যে। 

ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক এবং বিপণন বিভাগের প্রধান সমন্বয়ক ইভা রিজওয়ানা বলেন, সাশ্রয়ী দামে উচ্চমানের টেলিভিশন দিয়ে এরই মধ্যে গ্রাহকদের আস্থা ও মন জয় করে নিয়েছে ওয়ালটন। তাই ওয়ালটন এখন বাজারের শীর্ষ ব্র্যান্ড। প্যানেলের গ্যারান্টি সুবিধা চার বছরে উন্নীত করায় ওয়ালটনের প্রতি গ্রাহকদের আস্থা আরো বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছেন তিনি।

ওয়ালটন টেলিভিশন বিভাগের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকৌশলী মোস্তফা নাহিদ হোসেন জানান, এলইডি টিভির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে প্যানেল। টিভির মোট ব্যয়ের ৬০ শতাংশই লাগে প্যানেলে। প্যানেল ক্ষতিগ্রস্ত হলে গ্রাহককে গুনতে হয় মোটা অঙ্কের অর্থ। স্থানীয় বাজারে আমদানিকৃত অখ্যাত ব্র্যান্ডের এলইডি টিভিতে বেশির ভাগ সময়েই ব্যবহার করা হয় নিম্নমানের প্যানেল। আর কষ্টার্জিত অর্থে এসব টিভি কিনে ঠকছেন গ্রাহকরা। কিন্তু ওয়ালটন এলইডি টিভিতে ব্যবহার করা হচ্ছে উচ্চগুণগতমানের প্যানেল।

কর্তৃপক্ষ জানায়, আইএসও ক্লাস সেভেন ডাস্ট ফ্রি ক্লিন রুমে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির এইচএডিএস (হাই অ্যাডভান্স সুপার ডাইমেনশন সুইচ) এবং আইপিএস (ইন প্ল্যান সুইচিং) প্যানেল তৈরি করছে ওয়ালটন। যা প্যানেলের গুণগতমান ও দীর্ঘস্থায়িত্ব নিশ্চিত করে। এর ফলে দর্শকরা পান লার্জ ভিউয়িং অ্যাঙ্গেল এবং হাই কন্ট্রাস্ট পিকচার। সেই সঙ্গে ওয়ালটন টিভি ব্যাপক বিদ্যুৎসাশ্রয়ী।

ওয়ালটন টিভি ইতিমধ্যে অর্জন করেছে ব্যুরো অব ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ডস (বিআইএস) ও স্ট্যান্ডার্ডস অরগানাইজেশন অব নাইজেরিয়া প্রোডাক্ট কনফরমিটি অ্যাসেসমেন্ট প্রোগ্রাম এর টেস্টিং সার্টিফিকেট। দেশের গণ্ডি পেরিয়ে 'মেড ইন বাংলাদেশ' ট্যাগযুক্ত ওয়ালটন টিভি রপ্তানি হচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। আইএসও সনদপ্রাপ্ত সার্ভিস ম্যানেজমেন্টের আওতায় দেশব্যাপী বিস্তৃত সার্ভিস পয়েন্টের মাধ্যমে গ্রাহকদের দ্রুত ও সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবা দিচ্ছে ওয়ালটন। 

মন্তব্য