kalerkantho


ট্রাফিক উত্তর বিভাগ ও পাঠাও এর যৌথ উদ্যোগে ট্রাফিক সচেতনতা কার্যক্রম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ জুলাই, ২০১৮ ১৯:১১



ট্রাফিক উত্তর বিভাগ ও পাঠাও এর যৌথ উদ্যোগে ট্রাফিক সচেতনতা কার্যক্রম

পাঠাও লিমিটেড বাংলাদেশের সবচেয়ে দ্রুত গতিতে বেড়ে চলা প্রযুক্তি ভিত্তিক স্টার্ট-আপ, যা দেশের অগ্রযাত্রায় রাখছে সক্রিয় ভূমিকা। 

গত ১৭ জুলাই ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ট্রাফিক উত্তর বিভাগ) এবং পাঠাও লিমিটেডের যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়েছে ট্রাফিক আইন সচেতনতামূলক প্রোগ্রাম, যেখানে অসংখ্য পাঠাও রাইডারদের বিভিন্ন আইনের ধারা সম্পর্কে অবগত করে ও প্রশিক্ষণ দেয় ডিএমপি উত্তর বিভাগ। অনুষ্ঠানের মূল আলোচ্য বিষয় ছিল ‘ট্রাফিক আইন জানা ও মানার উপায়’। ওইদিন দুপুর ১২টায় এয়ারপোর্ট পুলিশ বক্সে উক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। 

ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক উত্তর বিভাগ) প্রবীর কুমার রায় পিপিএম। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক গুলশান) মোহাম্মদ নাজমুল আলম এবং অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক উত্তরা) রহিমা আক্তার লাকী। অনুষ্ঠান শেষে পাঠাও রাইডারদের হাতে হেলমেট ও রেইনকোট তুলে দিয়েছিল পাঠাও কর্তৃপক্ষ। 

উল্লেখ্য, উক্ত অনুষ্ঠানে পাঠাও কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দেয়, তাদের #MovingSafely ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে বিগত কয়েক মাসে তারা ৫,০০০ এরও বেশি হেলমেট বিতরণ করেছে এবং আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই আরো ১৫,০০০ হেলমেট বিতরণের পরিকল্পনা তাদের আছে।  

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক উত্তর বিভাগ) প্রবীর কুমার রায় পিপিএম বলেন, "পাঠাও বর্তমানে বেশ জনপ্রিয় এক রাইড শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম, যার মাধ্যমে শহরের মানুষ দ্রুত এক জায়গা থেকে আরেক জায়গা যেতে পারে। তবে এর জনপ্রিয়তার সাথে বাড়ছে দুর্ঘটনার ঝুঁকি। তাই এমন সময়ে পাঠাও রাইডারদের সাথে এই সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান ছিল সময়োপযোগী এক সিদ্ধান্ত। পাঠাও রাইডারদের ট্রাফিক আইন সম্পর্কে আরো অনেক বেশি সচেতন হতে হবে জনগণের সুবিধার্তে, দেশের স্বার্থে।"

এই আয়োজন সম্পর্কে পাঠাও এর ভাইস প্রেসিডেন্ট কিশওয়ার আহমেদ হাশমি বলেন, "ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ট্রাফিক উত্তর বিভাগ) পাঠাও রাইডারদের জন্য এই বিশেষ ট্রাফিক সচেতনতা প্রোগ্রাম আয়োজন করায় পাঠাও বাংলাদেশ পুলিশকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছে। পাঠাও এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে লাখো রাইডার পাচ্ছে আয় করার সুযোগ, সেই সাথে লাখো মানুষ সময় বাঁচিয়ে পৌঁছে যাচ্ছে গন্তব্যে। তাই পাঠাও রাইডারদের মাঝে ট্রাফিক সংক্রান্ত সচেতনতা বাড়াতে বাংলাদেশ পুলিশের সহযোগিতা একান্ত কাম্য। আমরা আশা করছি ভবিষ্যতেও পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় এমন আরো অনেক সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হবে। আপনারা জেনে খুশি হবেন যে আমরা আমাদের ওয়াক-ইন-সেন্টার থেকে বিনামূল্যে হাজার হাজার হেলমেট বিতরণ করছি, যাতে পাঠাও রাইডাররা ইউজারদের নিরাপত্তার জন্য এগুলো তাদের কাছে প্রদান করে।"

এই বিশেষ প্রোগ্রামে উপস্থিত ছিলেন পাঠাও লিমিটেডের ভাইস প্রেসিডেন্ট কিশওয়ার আহমেদ হাশমি, মার্কেটিং ম্যানেজার নুসরাত জারিন, অপারেশন্স ম্যানেজার মাহফুজুল আমিন শেখ প্রমুখ।



মন্তব্য