kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


টেলিনরের জরিপ

৪৯ শতাংশ স্কুল শিক্ষার্থী সাইবার হয়রানির শিকার

৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



দেশের ৪৯ শতাংশ স্কুল শিক্ষার্থী ইন্টারনেটের মাধ্যমে হয়রানির শিকার হয় বলে এক জরিপের বরাত দিয়ে জানিয়েছে টেলিকম অপারেটর গ্রামীণফোনের মূল অংশীদার টেলিনর গ্রুপ। শিক্ষার্থীদের অনলাইন কার্যক্রম ও আচরণ বিষয়ে ‘নিরাপদ ইন্টারনেট’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনে টেলিনর জানায়, বাংলাদেশের ৪৯ শতাংশ স্কুল শিক্ষার্থীর অনলাইন বা অফলাইনে একই ব্যক্তির দ্বারা হয়রানি বা উত্ত্যক্ত হওয়ার অভিজ্ঞতা রয়েছে।

অথবা তারা নাম প্রকাশ না করে অনলাইনে নিজেরা একে অন্যকে উত্ত্যক্ত করেছে। অনেক শিশুই অনলাইনে শব্দ ব্যবহারের প্রভাব সম্পর্কে বুঝে উঠতে পারে না।

বাংলাদেশের প্রধান শহরগুলোসহ বিভিন্ন এলাকার ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সী এক হাজার ৮৯৬ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ইন্টারনেটবিষয়ক জ্ঞান নিয়ে চালানো জরিপে এসব তথ্য উঠে আসে। ‘সাইবার বুলিয়িং’ বা সাইবার হয়রানিসহ ইন্টারনেটের বিভিন্ন বিষয়ে স্কুল শিক্ষার্থীদের প্রতিক্রিয়া বিশ্লেষণ করে এই গবেষণা প্রতিবেদন তৈরি করা হয়। প্রভাব বিস্তারকারী আচরণের ধরন বুঝতে, শিশুদের জন্য ইন্টারনেটকে নিরাপদ করে তুলতে এবং এ বিষয়ে কার্যকরী সমাধানের জন্য এ গবেষণা চালানো হয়েছে বলে জানায় টেলিনর। প্রতিবেদনে বলা হয়, শিশুদের ইন্টারনেটে সহজে প্রবেশাধিকারের কারণে মা-বাবাদের কাছে আলোচিত ও শঙ্কার একটি বিষয় হচ্ছে সাইবার বুলিয়িং। প্রতিবেদন অনুযায়ী, সোশ্যাল নেটওয়ার্কে সহজে প্রবেশের সুযোগ থাকায় শিশুরা তাদের জন্য অনুপযোগী ওয়েবসাইট ভিজিট করছে কিংবা অনলাইনে অশালীন ভাষা ব্যবহার করছে। সাইবারজগতে নেতিবাচক অভিজ্ঞতা সামাল দিতে শিক্ষার্থীদের দক্ষতা নিয়ে জানতে চাইলে ৬০ শতাংশ শিক্ষার্থী বলেছে, তারা মনে করে নিজেরা অথবা মা-বাবা ও শিক্ষকদের সঙ্গে পরামর্শ করে সমাধান করতে পারবে।

দেশজুড়ে পরিচালিত জরিপ প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশে জরিপকৃত শিক্ষার্থীর মাত্র ৩৮ শতাংশ অনলাইনের সমস্যার সমাধান করতে না পেরে মা-বাবা ও শিক্ষকদের দ্বারস্থ হয়।


মন্তব্য