kalerkantho


যা যা থাকছে বাকৃবি ৫৭ বছর উদযাপন অনুষ্ঠানে

বাকৃবি প্রতিনিধি   

২২ জুলাই, ২০১৮ ০১:৫৯



যা যা থাকছে বাকৃবি ৫৭ বছর উদযাপন অনুষ্ঠানে

ছবি: কালের কণ্ঠ

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) সাফল্য ও গৌরবের ৫৭ বছর উদযাপন এবং হাওর ও চর উন্নয়ন ইনস্টিটিউটের ভিত্তি প্রস্তরের উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হবে আজ রবিবার। রবিবার দিনব্যাপী ওই অনুষ্ঠান চলবে।

প্রথম পর্বে দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাফল্য ও গৌরবের ৫৭ বছর উদযাপন উপলক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু স্মৃতি চত্বরে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। দুপুর ২টায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বঙ্গবন্ধু চত্বরে অনুষ্ঠানে আসন গ্রহণ করবেন। এরপর 'বিশ্ববিদ্যালয়ের সাফল্য ও গৌরবের ৫৭ বছর' শীর্ষক ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হবে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দিবেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. জসিমউদ্দিন খান। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন অধ্যাপক ড. এম এ সাত্তার মন্ডল। এ ছাড়াও অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে থাকবেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান, বাকৃবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি কৃষিবিদ মো. আবদুর রাজ্জাক, সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আব্দুল মান্নান ও নির্বাহী সম্পাদক কৃষিবিদ বদিউজ্জামান বাদশা।

৫৭ বছরে বাকৃবি কর্তৃক উদ্ভাবিত বিভিন্ন প্রযুক্তি নিয়ে একটি মেলার আয়োজন করা হবে বাকৃবি হ্যালিপেডে। দুপুর সাড়ে ৩টার দিকে ওই মেলা প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। এ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬ অনুষদের উদ্ভাবিত বিভিন্ন প্রযুক্তি প্রদর্শিত হবে সেখানে। মেলা প্রদর্শন শেষে দেশের প্রথম হাওর ও চর উন্নয়ন ইনস্টিটিউটের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করবেন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ।

একই দিনে অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে বাকৃবি অ্যালামনাই সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হবে বিকাল সাড়ে চার টায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৪ হাজার গ্রাজুয়েট এবং তাদের পরিবারবর্গ সহ প্রায় ৫ হাজার জন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করছে। বিকাল চারটায় অ্যালামনাইগণের স্মৃতিচারণের পর বিশেষ অবদানের জন্য ১১ জন অ্যালামনাইকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা দেওয়া হবে। যৌথ উদ্যোগে বাকৃবি ও বাকৃবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের অনুষ্ঠানটির আয়োজন করবেন। এরপর সন্ধ্যা ৭টার দিকে অ্যালামনাইদের জন্য এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। 

এ ছাড়াও প্রত্যেক অ্যালামনাইদের জন্য থাকছে একাটি ব্যাগ। যার মধ্যে থাকবে একটি স্মরণিকা, খাবার কুপন, দাওয়াত কার্ড, আইডি কার্ড, একটি প্যাড এবং একটি কলম। 



মন্তব্য