kalerkantho


জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাসের জন্য অর্থ বরাদ্দ

৩২,৫২৫ কোটি টাকার ২০ প্রকল্প অনুমোদন একনেকে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ অক্টোবর, ২০১৮ ১০:০০



৩২,৫২৫ কোটি টাকার ২০ প্রকল্প অনুমোদন একনেকে

ছবি প্রতীকী

মিয়ানমার থেকে প্রাণভয়ে পালিয়ে এসে বাংলাদেশের উখিয়া ও টেকনাফে আশ্রয় নেওয়া ১০ লাখ রোহিঙ্গার জন্য বিদ্যুতের ব্যবস্থা করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। তাদের চলাচলের সুবিধার্থে সড়ক অবকাঠামো নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। এর পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের জন্য নিরবচ্ছিন্ন ত্রাণ সরবরাহ নিশ্চিত করতে কক্সবাজার-টেকনাফ বিদ্যমান সড়ক সংস্কারেরও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভায় (একনেক) এসংক্রান্ত আলাদা তিনটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। রাজধানীর শেরেবাংলানগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেন। সভায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস কেরানীগঞ্জে স্থাপনের জন্য ২০০ একর ভূমি অধিগ্রহণ ও উন্নয়নে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, একনেক বৈঠকে নতুন ও পুরনো মিলে মোট ২০টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট খরচ হবে ৩২ হাজার ৫২৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে জোগান দেওয়া হবে ১৫ হাজার ৪৯৪ কোটি টাকা। বাকি টাকা উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে পাওয়া যাবে। এ ছাড়া পরিকল্পনামন্ত্রী তাঁর নিজ ক্ষমতাবলে ৫০ কোটি টাকার নিচে আরো চারটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছেন; যেসব প্রকল্প গতকাল একনেক সভায় অবগতির জন্য ওঠানো হয়েছে। সব মিলিয়ে গতকাল একনেক সভায় ২৪টি প্রকল্প অনুমোদন পেয়েছে। বৈঠকে উপস্থিত একাধিক নীতিনির্ধারক কালের কণ্ঠকে জানান, সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের ধারাবাহিকতা থাকলে প্রকল্পগুলো এগিয়ে যাবে। আর সরকারের ধারাবাহিকতা না থাকলে এসব প্রকল্পের ভবিষ্যৎ হুমকিতে পড়বে।

পরিকল্পনা কমিশনের দেওয়া তথ্য মতে, মিয়ানমার থেকে কক্সবাজার জেলার ৩৩টি ক্যাম্পে আশ্রয় নেওয়া ১০ লাখ রোহিঙ্গা নাগরিকের নিরাপত্তা ও জীবনমান উন্নয়নের জন্য সরকার সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে। বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি) প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। ‘রোহিঙ্গাদের জন্য জরুরি সহায়তা’ শিরোনামের প্রকল্পটিতে খরচ হবে ১০৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) অনুদান দেবে ৭৮ কোটি টাকা। বাকি টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে জোগান দেওয়া হবে। এই প্রকল্পের আওতায় ৫০ কিলোমিটার বৈদ্যুতিক লাইন নির্মাণ করা হবে। এ ছাড়া ৩৩/১১ কেভি সাবস্টেশন একটি, বজ্রনিরোধক পোল ২০০টি এবং উন্নত চুলা দেওয়া হবে ৭০ হাজার।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস যাচ্ছে কেরানীগঞ্জে

গতকালের একনেক সভায় কেরানীগঞ্জে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস স্থাপনে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকার আলাদা একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। ক্যাম্পাস স্থাপনে জমি অধিগ্রহণ এবং প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য একনেকের সভায় এই অনুমোদন দেওয়া হলো। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট খরচ ধরা হয়েছে এক হাজার ৯২০ কোটি টাকা। পুরো টাকাই রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে জোগান দেওয়া হবে। এই প্রকল্পের আওতায় ২০০ একর জমি অধিগ্রহণ করা হবে।

গতকাল একনেকে অনুমোদিত অন্য প্রকল্পগুলো হচ্ছে—১০ হাজার ৪৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে ঘোড়াশাল পলাশ ইউরিয়া ফার্টিলাইজার প্রকল্প, এক হাজার ৯৫৭ কোটি টাকা ব্যয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কিল্লা নির্মাণ, ৬০৭ কোটি টাকা ব্যয়ে খুলনা সিটি করপোরেশনের গুরুত্বপূর্ণ ও ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা উন্নয়ন ও পুনর্বাসন প্রকল্প, ৪২৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২টি ক্যাডেট কলেজের অবকাঠামোগত সুবিধাদি সম্প্রসারণ প্রকল্প, ৫৯০ কোটি টাকা ব্যয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৫ নম্বর গুদারাঘাটের কাছে শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর কদমরসুল ব্রিজ নির্মাণ প্রকল্প এবং এক হাজার ৬৫৭ কোটি টাকা ব্যয়ে চট্টগ্রাম জেলার মিরসরাই বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল (বেজা) বন্যা নিয়ন্ত্রণ সড়ক কাম বেড়িবাঁধ প্রতিরক্ষা ও নিষ্কাশন প্রকল্প।



মন্তব্য