kalerkantho


সপ্তাহজুড়ে বসুন্ধরা পেপারের আধিপত্য

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ জুলাই, ২০১৮ ১১:৫০



সপ্তাহজুড়ে বসুন্ধরা পেপারের আধিপত্য

লেনদেনে মন্দাবস্থা ও ঢিমেতাল থেকে বেরিয়ে উত্থানে ফিরেছে দেশের পুঁজিবাজার। আর এতে সপ্তাহ শেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনে ব্যাপক উল্লম্ফন ঘটেছে। লেনদেন বৃদ্ধির সঙ্গে বেড়েছে বাজার মূলধন। বিশ্লেষণে দেখা গেছে, বিগত সপ্তাহে বসুন্ধরা পেপার মিলস লিমিটেডের সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে। সপ্তাহজুড়েই ছিল নতুন তালিকাভুক্ত হওয়া কম্পানিটির শেয়ার। গত ২ জুলাই কম্পানিটির লেনদেন শুরু হয়। এতে দুই সপ্তাহজুড়েই লেনদেনের শীর্ষে রয়েছে কম্পানিটি।

ডিএসইর সাপ্তাহিক তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, আগের সপ্তাহের মতো বিদায়ী সপ্তাহেও সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে বসুন্ধরা পেপার মিলসের। ৮ থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত পাঁচ কার্যদিবসে কম্পানিটির লেনদেন হয়েছে ২১৪ কোটি ৪১ লাখ টাকা। আর এক কোটি ২৯ লাখ ৯০ হাজার শেয়ার হাতবদল হয়েছে, যা ডিএসইর মোট লেনদেনের ৪.৪২ শতাংশ। আগের সপ্তাহে বসুন্ধরা পেপারের লেনদেন হয়েছিল ২৫৫ কোটি ৯৫ লাখ টাকা।

জানা যায়, বিগত সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে তিন দিন মূল্যসূচকে উত্থান হয়। আর দুই কার্যদিবস পতনের মধ্য দিয়ে লেনদেন শেষ হয়। এতে ডিএসইর লেনদেন বেড়েছে ৫৮.৬৪ শতাংশ। পাশাপাশি বেশির ভাগ কম্পানির শেয়ারের মূল্যবৃদ্ধি পেয়েছে। একই সঙ্গে বাজার মূলধনও বৃদ্ধি পেয়েছে।

ডিএসইর তথ্য মতে, বিগত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে চার হাজার ৮৫০ কোটি ২২ লাখ ৫৪ হাজার ১১০ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনেদেন হয়েছিল তিন হাজার ৫৬ কোটি ৭০ লাখ টাকার। সেই হিসাবে আগের সপ্তাহের তুলনায় লেনদেন বেড়েছে এক হাজার ৭৯৩ কোটি ৫২ লাখ ৩৪ হাজার ৩৯ টাকা বেশি। শতকরা হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ৫৮.৬৮ শতাংশ।

এই সপ্তাহে লেনদেনে বড় উত্থান হলেও ডিএসইর দুই সূচক হ্রাস পেয়েছে। ডিএসইএক্স সূচক ৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে পাঁচ হাজার ৩৫৮ পয়েন্ট আর ডিএসই-৩০ সূচক ১৯ পয়েন্ট কমে এক হাজার ৯০৬ পয়েন্ট। তবে ডিএসইএস শরিয়াহ সূচক ৬.০৬ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ২৬৭ পয়েন্ট। লেনদেন হওয়া ৩৪৩ কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১৭১টির, কমেছে ১৪৮টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৫ কম্পানির শেয়ারের দাম।

ডিএসইতে বাজার মূলধন বেড়েছে ৪৮২ কোটি সাত লাখ ৬৭ হাজার ৬৫০ টাকা। সপ্তাহ শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৮৬ হাজার ৮৭৭ কোটি ৩৫ লাখ ৮৭ হাজার ৩১১ টাকা। এর আগের সপ্তাহে বাজার মূলধন ছিল তিন লাখ ৮৬ হাজার ৩৯৫ কোটি ২৮ লাখ ১৯ হাজার ৬৬১ টাকা। 



মন্তব্য