kalerkantho


সুতি কাপড়ে কাজ করা পাঞ্জাবির চাহিদা বেশি

নওশাদ জামিল   

১ জুন, ২০১৮ ১৪:২১



সুতি কাপড়ে কাজ করা পাঞ্জাবির চাহিদা বেশি

ঈদ উপলক্ষে কেনা হয় নানা ধরনের পোশাক। তার মধ্যে ছেলেদের কেনাকাটার অন্যতম অনুষঙ্গ পাঞ্জাবি। ঈদের কেনাকাটার ক্ষেত্রে ছেলেদের তালিকায় টি-শার্ট, জিন্স প্যান্টসহ নানা পোশাক থাকলেও পাঞ্জাবিটা যেন চাই-ই। ঈদের সকালে প্রথম যে পোশাকটি পরতে হয়, সেটি পাঞ্জাবি। তাই পাঞ্জাবির কদরটা যেন একটু বেশিই। ঈদ উপলক্ষে রাজধানীর বড় শপিং মল থেকে শুরু করে ফুটপাতসহ সব জায়গায় মিলছে নানা ধরনের পাঞ্জাবি। ঈদের সময় গরম থাকবে, তাই হালকা রং ও সুতি কাপড়ের পাঞ্জাবি এনেছে বেশির ভাগ ফ্যাশন হাউস। দোকানিরা জানায়, সুতি কাপড়ে কাজ করা পাঞ্জাবির চাহিদাই বেশি।

রাজধানীর বিভিন্ন শপিং মল ও ফ্যাশন হাউস ঘুরে দেখা যায়, ফ্যাশন হাউসগুলো এনেছে বৈচিত্র্যময় নানা পাঞ্জাবি। সুতি কাপড়ের পাঞ্জাবিই বেশি। এ ছাড়া বিক্রি হচ্ছে হালকা ও আরামদায়ক অন্যান্য কাপড়ের পাঞ্জাবিও। সুতির ওপর হালকা কাজ করা, সুতি প্রিন্ট ও স্ট্রাইপের পাঞ্জাবির চাহিদা বেশি। সুতি কাপড়ের সাদা রঙের পাঞ্জাবি ও পায়জামা চলছে বেশি। পাশাপাশি ফ্যাশন হাউসগুলো এনেছে হালকা বেগুনি, গোলাপি ও নীল রঙের নানা ধরনের পাঞ্জাবি। সুতি পাঞ্জাবির ওপরে কিছু বাহারি পুঁতির কাজে সাজানো পাঞ্জাবিও এনেছে অনেক ফ্যাশন হাউস। সিল্কের পাঞ্জাবি, খাদি পাঞ্জাবি, সেমি-লং পাঞ্জাবি, লং পাঞ্জাবির চাহিদাও মন্দ নয়।

রাজধানীর মগবাজারের আড়ং আউটলেট ঘুরে দেখা যায়, পাঞ্জাবির বিক্রি বেড়েছে আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি। পাঞ্জাবি কিনতে আসা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সারোয়ার হোসেন বলেন, ‘ঈদ ও পহেলা বৈশাখ উপলক্ষেই পাঞ্জাবি কেনা হয়। এ ছাড়া বিভিন্ন অনুষ্ঠানে, উৎসবে পাঞ্জাবি পরতে ভালোই লাগে আমার।’

রাজধানীর শপিং মল বসুন্ধরা সিটি, নিউ মার্কেট, আজিজ সুপারমার্কেট, মৌচাক মার্কেটসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউস ঘুরে দেখা যায়, তরুণ ক্রেতাদের আগ্রহ দেশি কাপড়ের বিভিন্ন প্রিন্টের পাঞ্জাবির প্রতি। রঙের সঙ্গে সমন্বয় করে ব্লক ও স্ক্রিন প্রিন্টের পাঞ্জাবি তরুণদের বেশি পছন্দ বলে জানায় ফ্যাশন হাউসগুলো। প্রিন্টের কাপড়ের সঙ্গে গলায় হালকা কাজের পাঞ্জাবিও ভালো চলছে বলে জানায় তারা। দেশী দশ, আজিজ সুপারমার্কেটের বিক্রেতারা জানায়, তরুণদের পাঞ্জাবিতে গাঢ় রঙের প্রাধান্য পেয়েছে। অন্যদিকে বয়স্ক পুরুষদের পাঞ্জাবিতে হালকা রঙের প্রাধান্য দেখা যায়। গরমে চাই আরামদায়ক পাঞ্জাবি। সেদিকে বিশেষ লক্ষ্য রাখা হয়েছে বলে জানায় ব্যবসায়ীরা।

পাঞ্জাবি ও টি-শার্টের জন্য বিখ্যাত আজিজ সুপারমার্কেট। এখানে প্রতিটি ফ্যাশন হাউসের দোকানেই রয়েছে পাঞ্জাবির কালেকশন। অনেক পাঞ্জাবি সাদা রঙের, সুতির কাপড়ের। তাতে রয়েছে হাতের কাজ। সেসবের বেশ চাহিদা। সুতির কাপড়ের পাঞ্জাবির দাম এক হাজার টাকা থেকে তিন হাজার টাকার মধ্যে। তবে হাতের কাজ করা পাঞ্জাবির দাম তুলনামূলক একটু বেশিই। আজিজ সুপারমার্কেটে স্বামী ও শ্বশুরের জন্য পাঞ্জাবি কিনতে এসেছিলেন গৃহিণী সাদিয়া আক্তার। কথা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এই মার্কেটে দাম তুলনামূলক কম। ডিজাইন ও কাপড়ও খারাপ না। তাই আজিজ মার্কেটে পাঞ্জাবি কিনতে এসেছি।’

রাজধানীর মার্কেট অনুসারে পাঞ্জাবির দামের পার্থক্যও রয়েছে। আজিজ সুপারমার্কেটে এক হাজার টাকা থেকে চার হাজার টাকায় পাঞ্জাবি পাওয়া যাচ্ছে। বসুন্ধরা সিটিতে পাঞ্জাবি এক হাজার থেকে সাত হাজার টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। বেইলি রোডের বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে পাঞ্জাবির দাম দুই হাজার থেকে ছয় হাজার টাকা।

এবার ঈদে কিছু কিছু ফ্যাশন হাউসে মিলছে পাঞ্জাবি কটি। পাঞ্জাবির সঙ্গে থাকছে ম্যাচিং করা পায়জামা ও কটি। মূলত এটি ইন্ডিয়ান ব্র্যান্ড। দেশের কিছু ফ্যাশন হাউস তা এনেছে। সুতিকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। আর বাহারি রঙের কটি পাঞ্জাবির সৌন্দর্য অনেক বেশি বাড়িয়ে দিয়েছে। মান্যবরের বিভিন্ন শোরুমে মিলছে এমন পাঞ্জাবি কটি। দাম চার হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা।

যারা ঈদের পাঞ্জাবিটাকে কাজে লাগাতে চাইছে ঈদ-পরবর্তী পার্টিতে, তারা ঝুকছে সিল্কের পাঞ্জাবির দিকে। পাঞ্জাবির দোকান ঘুরে দেখা যায়, ঈদ উপলক্ষে এ বছর সিল্ক ও অ্যান্ডি কটন পাঞ্জাবির চাহিদাও খারাপ নয়। তাতে রয়েছে হাইনেক গলার সঙ্গে চেস্ট ও হাতার গিলাফে কারুকাজ। লুবনান, ইয়েলো, আড়ংসহ বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় ফ্যাশন হাউসে মিলছে সিল্কের পাঞ্জাবি। ডিজাইন ও কাপড় ভেদে দাম তিন হাজার থেকে আট হাজার টাকা।



মন্তব্য