kalerkantho


১০ বছরেও ক্ষতিপূরণ পাননি মুক্তিযোদ্ধা রেজা

জামালপুর প্রতিনিধি   

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



আদালতের রায় অনুযায়ী ৪৫ দিনের মধ্যে ক্ষতিপূরণের ২৫ লক্ষাধিক টাকা পাওয়ার কথা ছিল জামালপুরের মাদারগঞ্জের যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা মো. রেজাউল করিম আজাদের। দুর্ভাগ্যজনকভাবে কয়েক হাজার দিনেও সেই টাকা পাননি। উল্টো আরো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

চরগাবের মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল জানান, প্রথম শ্রেণির ঠিকাদার ছিলেন তিনি। ১৯৮৭-৮৮ অর্থবছরে দরপত্রের মাধ্যমে বালিজুড়ী-মাহমুদপুর সড়কের গোপালপুরে আরসিসি ঢালাইয়ের পাকা পুল নির্মাণের (কেয়ার-০৯ প্রকল্প) কার্যাদেশ পান। পরে উপজেলা প্রকৌশলী ও উপসহকারী প্রকৌশলীর উপস্থিতিতে ১৯৮৮ সালের ১৩ মার্চ লে-আউট দিয়ে কাজ শুরু করা হয়। উপজেলা প্রকৌশলী তাঁকে ভুল নকশা-নমুনা দিয়েছিলেন। ফলে পুলটির স্প্যান দুই ফুট আট ইঞ্চি কমে যায়। এ অবস্থায় একই বছরের ১০ মে পুলটির নির্মাণকাজ বন্ধ করে দেয় কেয়ার কর্তৃপক্ষ। তখন থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট দপ্তরে ঘুরেও তিনি বিল পাননি। অবশেষে ২০০৩ সালের ৭ আগস্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকৌশলীকে আইনগত নোটিশ দেন। পরে ২৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে ২০০৪ সালে জেলা দ্বিতীয় যুগ্ম জজ আদালতে মামলা করেন। মামলায় বিবাদী করা হয় ইউএনও ও উপজেলা প্রকৌশলীকে।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. রাসেল সাবরিন জানান, আইনি সমস্যা না থাকলে রেজাউল করিম আজাদ যাতে দ্রুত তাঁর ক্ষতিপূরণের টাকা পান সেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



মন্তব্য