kalerkantho


অন্য রকম

বিজ্ঞাপনের আয় পুরোটাই দান

সমাজকর্মে আগে থেকেই এগিয়ে অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। সম্প্রতি একটি সুগন্ধির বিজ্ঞাপনে পাওয়া সম্মানীর পুরোটাই দান করেছেন দাতব্য প্রতিষ্ঠানে। মডেল জোলিকে নিয়ে লিখেছেন ফারাহ্ মাহমুদ

৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বিজ্ঞাপনের আয় পুরোটাই দান

বিখ্যাত ফ্যাশন ব্র্যান্ড লুই ভুইতোঁর বিজ্ঞাপনে অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

অ্যাঞ্জেলিনা জোলি শুধু অভিনয়ের জন্যই সুপরিচিত নন, একজন একনিষ্ঠ সমাজকর্মী হিসেবেও রয়েছে তাঁর যথেষ্ট নামডাক। বিখ্যাত ফ্যাশন ব্র্যান্ড লুই ভুইতোঁর হ্যান্ডব্যাগের মডেল হয়ে পারিশ্রমিক পেয়েছেন ১০ মিলিয়ন ডলার। প্রাপ্ত অর্থের বেশির ভাগই তিনি দান করেছেন বেশ কয়েকটি দাতব্য প্রতিষ্ঠানে। সম্প্রতি বিখ্যাত ফরাসি পারফিউম ব্র্যান্ড গ্যালার নতুন পারফিউম ‘মো গ্যালা’য় মডেলিং করেছেন। বিজ্ঞাপনটির মডেলিং ও পণ্যটির বিভিন্ন ক্যাম্পেইন থেকে প্রাপ্ত অর্থের পুরোটাই তিনি দান করেছেন। শুধু তাই নয়, ভবিষ্যতেও এই বিজ্ঞাপন থেকে প্রাপ্ত অর্থ ডোনেশনে যাবে বলে নিশ্চিত করেছেন জোলি।

জোলির যখন ১৪ বছর বয়স, তখন মা তাঁকে মডেলিং করতে উত্সাহ জোগান। অবাক করা তথ্য হচ্ছে জোলি চেষ্টা করেও তখন মডেলিংয়ে খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। তবে ১৬ বছর বয়সে মিউজিক ভিডিওতে মডেলিংয়ের মধ্যে দিয়ে শুরু হয় জোলির ক্যারিয়ার। চলচ্চিত্রে অভিষেকের পরই ভাগ্য বদলে যায় জোলির। একের এক হিট সিনেমা দিয়ে হলিউডের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া অভিনেত্রীর স্থান দখল করেন।

২০০১ সালে ‘ইউনাইটেড নেশন হাইকমিশনার ফর রিফিউজি’র শুভেচ্ছা দূত নির্বাচিত হন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। শুভেচ্ছা দূত হিসেবে ঘুরে বেড়িয়েছেন ইরাক, আফগানিস্তান, পাকিস্তান, বসনিয়া, হাইতি, সিরিয়াসহ ২০টিরও বেশি দেশের শরণার্থী শিবিরে। পাকিস্তানে বসবাসরত আফগান শরণার্থীদের সাহায্যে এক মিলিয়ন ডলার দান করেন সে সময়।

শুধু যে বিজ্ঞাপন থেকে পাওয়া অর্থ দান করেন তিনি তাই নয়, ব্র্যাড পিটের সঙ্গে জোলির বিয়ের সব ছবি পাঁচ মিলিয়ন ডলারে বিক্রি হয়, যার পুরো অর্থ দাতব্য প্রতিষ্ঠানে দান করে দেন ব্র্যাঞ্জেলিনা দম্পতি। প্রথমবারের মতো মা হওয়ার খবর অ্যাঞ্জেলিনার ভক্তদের জন্য বিরাট খবর। এই খবর প্রকাশের জন্য মুখিয়ে ছিল বিশ্বের নামিদামি ম্যাগাজিনগুলো। শেষমেশ মা ও গর্ভবতী হওয়ার ছবি পাঁচ লাখ ডলারের বিনিময়ে পিপল ম্যাগাজিনকে দেন জোলি। আর পুরো অর্থ দান করেন ‘ইয়েলে হাইতি’ ফাউন্ডেশনে।

দান করা যাঁর নেশা, তিনি তা করার জন্য সুযোগ খুঁজবেন—এটাই স্বাভাবিক। নতুন খবর হচ্ছে ২০১৫ সালে ফরাসি সুগন্ধি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান গুয়েরলেইনের সঙ্গে চুক্তি করেন জোলি। প্রকাশ না পেলেও ধারণা করা হচ্ছে, রেকর্ড পরিমাণ অঙ্কের চুক্তি হয়েছে। এবারও সেই পারিশ্রমিকের পুরোটাই দান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জোলি। গুয়েরলেইনের পক্ষ থেকেও এক বিবৃতিতে বিষয়টি জানানো হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যেই শুরু হয়ে যাবে বিজ্ঞাপনটির শুটিং। পরিচালনা করবেন চলচ্চিত্র নির্মাতা টেরেন্স ম্যালিক। ২০১৭ সালের শেষ দিকে প্রচার শুরু হবে বিজ্ঞাপনটি। আগে থেকেই শরণার্থী বিষয়ে কাজ করছেন জোলি। ধারণা করা হচ্ছে, জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থায়ই যাবে জোলির পারিশ্রমিকের টাকা।

জোলির উল্লেখযোগ্য বিজ্ঞাপনের মধ্যে রয়েছে সেন্ট জন, লুইস ভুইতোঁ, ম্যাক কসমেটিকস, কিউ মোবাইল।  

২০১৪ সালে বসনিয়া, হার্জেগোভিনা ও সার্বিয়ায় বন্যাদুর্গতদের জন্য ৫০ হাজার ডলার দান করেন।

দাতব্য প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন সমাজকর্মে জোলির দান করা অর্থের বড় একটি অংশ আসে তাঁর করা বিজ্ঞাপন থেকে। ক্যারিয়ারে খুব বেশি বিজ্ঞাপনে দেখা যায়নি তাঁকে। তবে যে কয়েকটি বিজ্ঞাপনে মডেল হয়েছেন, তার সবগুলোই হিট। এ কারণে মডেলিংয়ে এখন বড় অঙ্কের পারিশ্রমিক নিয়ে থাকেন জোলি। তাঁর নেওয়া পারিশ্রমিক সমাজসেবায় ব্যয় হয়। এ জন্যই অন্য রকম বিজ্ঞাপন তারকার তকমা সেঁটে গেছে জোলির গায়ে।

 


মন্তব্য