kalerkantho


অনলাইন

১০০ মডেল ২০০ ঘুড়ি

অনলাইনে প্রচার হচ্ছে উত্তরা রাজউক অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্টের বিজ্ঞাপন। বানিয়েছেন নির্মাতা হাসান মোর্শেদ। পেছনের গল্প জানাচ্ছেন আতিফ আতাউর

১৩ জানুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



১০০ মডেল ২০০ ঘুড়ি

আবাসন সুবিধা নিয়ে বিজ্ঞাপনটির গল্প। উত্তরা রাজউক অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্ট নামের সরকারি প্রকল্পের বিজ্ঞাপনটিতে ঋণ সুবিধাসহ আরো নানা সুযোগের কথা তুলে ধরা হয়েছে।

 

গল্পটা আবাসন নিয়ে

এতে আবাসন সুবিধাসহ স্কুল, কলেজ, ইউনিভার্সিটি, লেক, প্রশস্ত সড়ক, শপিং মল থেকে শুরু করে আদর্শ আবাসন ব্যবস্থার গল্প ফুটে উঠেছে। সকালে সুস্বাস্থ্যের জন্য ব্যায়াম, বিকেলে ঘুরে বেড়ানোর জন্য সুন্দর সাজানো লেকের পাড়ের দেখাও মেলে বিজ্ঞাপনটিতে। নির্মাতা হাসান মোর্শেদ বলেন, ‘যেহেতু আবাসন সুবিধার বিজ্ঞাপন, সে জন্য একটি আদর্শ আবাসনব্যবস্থার সুন্দর চিত্রই তুলে ধরতে চেষ্টা করেছি। ’

 

তিন দিনের শুটিং

এক মিনিট দৈর্ঘ্যের এই বিজ্ঞাপনচিত্র শুটিং করতে নির্মাতা সময় নিয়েছেন তিন দিন। শুটিং হয়েছে ঢাকার বারিধারা, উত্তরার অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্ট এলাকায়। প্রকল্পটি নির্মাণাধীন। তাই পুরো প্রকল্প শেষ হওয়ার পর এখানে সুযোগ-সুবিধা কেমন পাওয়া যাবে তার একটি সুনির্দিষ্ট ধারণা দিতেই এমন আয়োজন বলে জানালেন হাসান মোর্শেদ।

 

২০০ ঘুড়ি

নির্মাতা বলেন, ‘হারিয়ে যাচ্ছে এমন একসময়ের গল্প তুলে ধরতে চেয়েছি। এ প্রজন্মের অনেকে খেলাধুলার চেয়ে কম্পিউটার গেমে বেশি আসক্ত।

আবার নদীতে বড়শি ফেলে মাছ ধরা কিংবা বিকেলে ঘুড়ি ওড়ানোটাও ভুলে যাচ্ছেন অনেকে। এমনটা হওয়ার একটা কারণ সুযোগ কিংবা পরিবেশের অভাব। কিন্তু এখানে এলে এর সবই পাবেন। এটাই এ বিজ্ঞাপনের বার্তা। ’ ঘুড়ির দৃশ্য ধারণের জন্য পুরান ঢাকা থেকে অর্ডার দিয়ে দুই শ ঘুড়ি বানিয়ে নিয়েছিলেন। শুটিংয়ের দিন ইউনিটের কর্মীসহ মডেলদের হাতে ধরিয়ে দেন ঘুড়ি। বাতাস ছিল প্রচুর। ফলে ওড়াতে কোনো ঝামেলাই হয়নি বলে জানান তিনি।

 

সাজানো লেক, বড়শিতে মাছ

শুটিংয়ের জন্য প্রজেক্ট এলাকার লেকটিকে সুন্দর করে সাজিয়ে নেন আর্ট ডিরেক্টর হাসান তারেক। প্রকল্প শেষ হওয়ার পর যেমন হবে তেমন করেই রাস্তার পাশের ল্যাম্পপোস্টগুলো সাজিয়ে নেন। লেকে অনেক মাছ থাকলেও শুটিংয়ের শব্দে তো আর বড়শিতে মাছ ধরবে না। এ জন্য আগেভাগেই বাজার থেকে মাছ কিনে রাখা হয়। শুটিংয়ের সময় এই মাছ বড়শিতে গেঁথে লেকে ফেলা হয়। সে দৃশ্যেরই দেখা মেলে বিজ্ঞাপনে।

 

১০০ মডেল

এ বিজ্ঞাপনে প্রায় ১০০ জন মডেল অংশ নিয়েছেন। হাসান মোর্শেদ বলেন, ‘বিজ্ঞাপনের গল্পের কারণেই এত মডেল নিয়ে কাজ করতে হয়েছে। পার্ক, লেন, বাসাবাড়ি, খেলার মাঠ, শপিং সেন্টার, সুইমিং পুলের দৃশ্য যথাযথভাবে তুলে আনতে হয়েছে। এর জন্য আমরাও চেষ্টা করেছি বেশিসংখ্যক মডেল দিয়ে একেকটি দৃশ্য ঠিকঠাকভাবে ধারণ করতে। ’

 

বিজ্ঞাপনের বার্তা

রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) উত্তরায় আবাসন সুবিধার জন্য অ্যাপার্টমেন্ট তৈরি করছে। এই প্রজেক্টে অ্যাপার্টমেন্ট বুকিংয়ের জন্য স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ডের সহযোগিতায় স্বল্প সুদে ২৫ বছর মেয়াদি ব্যাংকঋণের সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে।

 

পেছনে যাঁরা

ক্লায়েন্ট রাজউক, প্রডাকশন হাউস ফিল্ম ফ্যাক্টরি, দৃশ্য ধারণ নেহাল কোরায়েশী, আর্ট ডিরেক্টর হাসান তারেক, এডিট রাশেদুজ্জামান সোহাগ, অন স্পট এডিট রানা শিকদার, মিউজিক ইমন চৌধুরী, সাউন্ড ডিজাইন সায়বা তালুকদার, কস্টিউম ইদিলা ফরিদ তুরিন ও মেকআপ মনির হোসেন।  


মন্তব্য