kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।

যমুনায় লাল পরী

যমুনা ফ্রিজের বিজ্ঞাপনে মডেল হয়েছেন চিত্রনায়িকা পরীমণি। তাঁর এই বিজ্ঞাপনের গল্প নিয়ে লিখেছেন মাহতাব হোসেন

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



যমুনায় লাল পরী

‘সুন্দর, সুন্দর করে। সুন্দর, সুন্দরকে করে অপরূপ’—টিভি খুললেই কানে ভেসে আসছে এই বাক্য।

এর পরই ‘ফুলেল শোভায় শোভিত তুমি। ’ কৌতূহলী হয়ে টেলিভিশনের দিকে তাকালেই দেখা যায় ‘লাল পরী’ সবাইকে মোহিত করে চলেছেন। যমুনা ফ্রিজের একটি বিজ্ঞাপনে তাঁকে দেখা যাচ্ছে এই রুপে। ঈদ উপলক্ষে প্রচার হচ্ছে নতুন এই বিজ্ঞাপনটি। প্রচারের পর চারদিক থেকেই বাহবা পাচ্ছেন পরীমণি।

রক্ত চলচ্চিত্র নিয়ে ব্যস্ত পরীমণিকে আজ ঢাকা তো কাল কলকাতা, পরশু দার্জিলিং আসা-যাওয়া করতে হচ্ছে। এরই মধ্যে পরীমণির কাছে প্রস্তাব আসে যমুনা রেফ্রিজারেটর বিজ্ঞাপনের। সময় কোথায় পরীমণির? ঈদে মুক্তি পাবে ‘রক্ত’ চলচ্চিত্র। দিন-রাত পরিশ্রম করতে হচ্ছে। এমনকি মধ্যরাতে সবাই যখন ঘুমের ঘোরে, পরীমণি তখন পিচঢালা রাস্তায় শুয়ে শট দিচ্ছেন। এর মাঝে কিভাবে বিজ্ঞাপন সম্ভব?

পরীমণি বলেন, ‘আমি এত ব্যস্ত যে বিজ্ঞাপনের সময় দিতে পারছি না। আবার নাও করতে পারছি না। ছোট পর্দার প্রতি আমার দুর্বার আকর্ষণ। মডেলিংয়ে ভীষণ দুর্বলতা। কিন্তু উপায় কী? আমাকে রক্তের সেটে সময় দিতে হচ্ছে; কিন্তু বিজ্ঞাপন নির্মাতারা আমাকে চাইছেন। ’ তাঁদের বক্তব্য এই বিজ্ঞাপনে নাকি পরীমণিকেই ভালো মানায়।

পরীমণি বলেন, ‘এটা অবশ্য তাঁদের ভালোবাসারই প্রকাশ। অনেক কষ্ট করে তাই সময় বের করলাম। দুপুর ২টা থেকে সারা রাত আমি ফ্রি। এফডিসির একটি ফ্লোর ভাড়া নেওয়া হয়েছে। শুটিং শুরু হবে। পরিচালককে দেখলাম না। বিজ্ঞাপনের স্ক্রিপ্টও আগে দেখিনি। একজন হ্যান্ডসাম যুবককে দেখলাম। আমার বিপরীতে এত সুদর্শন যুবক মডেল হবে! তাহলে তো ভালোই। যুবক বেশ হেল্পফুল। আমাকে শুটিংয়ে সাহায্য করতে লাগলেন। এভাবেই তিন ঘণ্টার মতো কেটে গেল, তখনো ওই যুবকের কোনো শট নেওয়া হচ্ছে না ভেবে অবাক হই। ’

সবচেয়ে মজার বিষয় হলো সুদর্শন যুবক বিজ্ঞাপনের নায়ক নন। ওই বিজ্ঞাপনের বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত পরিচালক জোবায়ের কাওলিন।

পরীমণি বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে লজ্জাও পেলাম আবার বেশ মজাও লাগল। আরো মজার ব্যাপার হলো পরিচালক আপনি করে বলতে বলতে তুইয়ে নেমে এসেছেন। অন্য কেউ হলে হয়তো নাক ফাটিয়ে দিতাম। আপনি থেকে তুমিও না, একেবারে তুই! কিন্তু এই পরিচালকের ‘তুই’ সম্বোধনটা বেশ মজার। এ জন্য খারাপ লাগেনি। বরং মজাই লেগেছে। ’

২০১৪ সালে ‘বনফুল মিষ্টি’র বিজ্ঞাপনে প্রথম মডেল হন। মডেলিংয়ে আসার গল্পটা খুবই সাধারণ। ২০১৩ সালের মাঝামাঝি ‘সেকেন্ড ইনিংস’ ধারাবাহিকে অভিনয় করেন। সেখান থেকেই ডাক পান এই বিজ্ঞাপনে।

তবে বেশি পরিচিতি পেয়েছেন প্রাণ আপ বিজ্ঞাপন দিয়ে। স্মৃতিচারণ করলেন সেই বিজ্ঞাপনটি নিয়ে। শীতের মধ্যে পূর্বাচল এক্সপ্রেসওয়েতে শুটিং। এক দল ছেলেমেয়ের সঙ্গে নাচতে হবে, গাইতে হবে। বৃষ্টি এলে হাতের ছাতা উড়িয়ে দেবেন। শট দিতে বারবার পরীকে বৃষ্টিতে ভিজতে হচ্ছিল। পরী বলেন, ‘বৃষ্টির মধ্যে ভিজছি। লোকজন ভিড় করে শুটিং দেখছে। কয়েকজন নারী চাদর গায়ে দিয়ে বিজ্ঞাপন দেখছে আর বলছে, এই মেয়েটা পরি নাকি জিন। বেশ মজা পেয়েছি তাদের কথায়। ’ তবে ধকলও কম যায়নি। জ্বরে ভুগেছেন বেশ কয়েক দিন!

স্যান্ডালিনা স্যান্ডাল সোপের বিজ্ঞাপনেও এর আগে রাজকন্যা রূপে হাজির হয়েছিলেন। কোহিনূর কেমিক্যাল কম্পানি সরাসরি পরীর সঙ্গে যোগাযোগ করে এই বিজ্ঞাপনের জন্য। মডেলিংয়ের প্রতি দুর্বলতার জন্যই না করতে পারেননি।

 


মন্তব্য