kalerkantho


ইন্টেরিয়র

অব্যবহূত জায়গার ব্যবহার

বাড়িতে আসবাবের বিন্যাস গুরুত্বপূর্ণ। আনাচে-কানাচে অব্যবহূত জায়গার চাই যথোপযুক্ত ব্যবহার। ইন্টেরিয়র লবির ডিজাইনার মো. আফজাল হক রতনের সঙ্গে কথা বলে জানাচ্ছেন নাঈম সিনহা

১৩ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



অব্যবহূত জায়গার ব্যবহার

সাধারণত সিঁড়ির নিচে, ঘরের কলামের কোনায় বিভিন্ন জায়গা অব্যবহূত থাকে। জমে ধুলাবালি। পরিষ্কার করতে পোহাতে হয় ধকল। এসব জায়গার সদ্ব্যবহার করতে পারলে ঘর হবে সুসজ্জিত।

 

সিঁড়ির নিচ

বাসাবাড়ির সিঁড়িগুলো ভি, ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ, স্পাইরাল আকৃতির হয়ে থাকে। সাধারণত ভি শেইপের সিঁড়ি বেশি দেখা যায়। এ সিঁড়ির নিচে ত্রিভুজ আকৃতির ফাঁকা জায়গা থাকে। বাড়ি ডুপ্লেক্স হলে সেখানে প্লাইউড বা মেলামাইন বোর্ড দিয়ে ত্রিভুজ আকৃতির বক্স বানাতে পারেন। সেই বক্স খোলার জন্য থাকতে পারে দুটি পাল্লা। প্লাইউডের ওপরে করতে পারেন পছন্দমতো নকশা। সিঁড়ি বাসার বাইরে হলে ত্রিভুজ আকৃতির একই রকম বক্স বানাতে পারেন। সেখানে বাড়ির মিটার, পানির মোটরসহ নানা কিছু থাকতে পারে। অবশিষ্ট ফাঁকা জায়গায় রাখতে পারেন গাছ বা ফুলদানি। থাকতে পারে বইয়ের তাকও।

 

ঘরের কলাম

ঘরে অনেক সময় এক কোণে বা মাঝে কলাম বাড়তি জায়গা নিচ্ছে। সে ক্ষেত্রে কলামের সামনের অংশ ধরে একটি প্লাইউড দিয়ে সিলিং থেকে নিচ পর্যন্ত বক্স বানাতে পারেন। এটি খোলার জন্য প্লাইউডের দরজা দিয়ে দিলেই আলমারির মতো কাজে লাগবে।

কিংবা সিলিং থেকে কয়েকটি ধাপ বানিয়ে নিচে নামিয়ে দিতে পারেন। প্রথমে কাঠ, মাঝে কাচ ও শেষে আবার কাঠের ধাপ বানালে দেখতে সুন্দর লাগবে। সেখানে রাখতে পারেন শোপিস কিংবা গাছ। একদম নিচের দিকে থাকতে পারে বক্স। ঘরের জায়গা বাঁচাতে বানাতে পারেন দেয়ালের সঙ্গে লাগানো কাঠের আলমারি বা ওয়ার্ডরোব।

রান্নাঘর

রান্নাঘরের বিমের কোনাগুলোতে প্রায়ই বাড়তি জায়গা পড়ে থাকে, যা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখাও বেশ মুশকিল হয়। এসব জায়গায় রাখতে পারেন গ্যাস সিলিন্ডার, চালের ড্রাম, তেলের বড় গ্যালন, ময়লার বক্স ইত্যাদি। সিঙ্ক বা চুলার ওপর ফাঁকা জায়গায় কাঠ বা প্লাইউড দিয়ে র্যাক বানিয়ে তাতে টুকিটাকি কাজের জিনিস রাখতে পারেন। তবে মনে রাখুন, চুলার ওপর তেল চিটচিটে হওয়ার আশঙ্কা থাকবে। সে ক্ষেত্রে নিয়মিত পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।

 

ওয়াশরুম

ওয়াশরুমের ওপর ফলস ছাদ রাখতে পারেন। সেটা কেবিনেট হিসেবে কাজ করবে। লক্ষ্য রাখুন, ওয়াশরুমের সিলিং ও কেবিনেটের মধ্যে যেন বাতাস চলাচল করতে পারে। ফাঁকা অংশে নেট দিয়ে দিতে হবে, যাতে পোকামাকড় না ঢুকতে পারে।

টয়লেট

ফ্লাশের পাশে অব্যবহূত জায়গায় কাঠ বা কাচের গ্লাসের ধাপ বানাতে পারেন। রাখতে পারেন বিভিন্ন দরকারি সামগ্রী। দরজার কোনায়ও রাখতে পারেন হ্যাংগার। এসব জায়গায় সবুজ পানিপ্লান্টের গাছ রাখতে পারেন। মনে রাখবেন, পুরো জায়গাটা যেন হিজিবিজি না দেখায়।

 



মন্তব্য