kalerkantho


কেনাকাটা

এবার দই মেকার

ঝামেলার কারণে অনেকে বাসায় দই বানাতে চান না। তাঁদের জন্য বাজারে পাওয়া যাচ্ছে দই তৈরির ইলেকট্রিক যন্ত্র। বাজার ঘুরে এসে জানাচ্ছেন আতিফ আতাউর

৮ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



এবার দই মেকার

হজমে সহায়ক বলে ভোজন শেষে অনেকের পছন্দ দই। অতিথি আপ্যায়নেও জুড়ি নেই দইয়ের। এমন খাবার কে না বানাতে চান। কিন্তু দই তৈরির পদ্ধতি সময়সাপেক্ষ ও ঝামেলার বলে ঘরে না বানিয়ে বাইরে থেকেই কেনেন সবাই। আবার শখের বসে কেউ কেউ দই বানাতে বসে গেলেও দেখা যায় দই জমাট বাঁধে না। এসব ঝামেলা থেকে রেহাই দিতে দোকানে পাওয়া যাচ্ছে ইলেকট্রনিক দই মেকার। এই মেশিনে দই বানাতে নেই কোনো বাড়তি ঝামেলা। চাইলে ঘরেই বানাতে পারবেন দই যখন-তখন। অন্য সব পদ্ধতি প্রচলিত দই বানানোর মতোই। দই মেকার মেশিন থেকে শুধু জমাট বাঁধার নিশ্চয়তাটুকুই পাওয়া যাবে। বাজারে বিভিন্ন মডেল ও আকৃতির দই মেকার পাওয়া যায়। বাটির মতো আকৃতির এসব দই মেকারে থাকে ছয়টি কাচের গ্লাস, যার মধ্যে দই জমাট বাঁধে। সাধ ও সাধ্য মিলিয়ে কিনে নিতে পারেন যেকোনো একটি। তারপর ঘরে বসেই তৈরি করুন দোকানে পাওয়া দই।

 

ব্যবহার পদ্ধতি

পাত্রে দুধ-চিনি দিয়ে চুলায় গরম করে অর্ধেকে আনতে হবে। এরপর গরম কমিয়ে এনে সামান্য দই দুধে ভালোমতো মেশাতে হবে। মনে রাখতে হবে, দুধ একেবারে ঠাণ্ডা করা যাবে না। এরপর দুধের দ্রবণ দই মেকার মেশিনে রাখা কাচের গ্লাসে ঢেলে মুখ বন্ধ করে দিতে হবে। দই কেমন ঘন চান তার জন্য নির্দেশনা বাটন রয়েছে। ঘন চাইলে থিক আর পাতলা চাইলে থিন বাটন চাপতে হবে। এবার দই মেকারটি একটি শুষ্ক স্থানে রেখে দিতে হবে ছয় থেকে সাত ঘণ্টা। নির্দিষ্ট সময়ের পর দই মেকার থেকে গ্লাসগুলো বের করলেই পাওয়া যাবে দই।

 

কোথায় পাবেন

ট্রান্সকম ডিজিটালের শোরুমে পাওয়া যাবে সিবেক ব্র্যান্ডের ইলেকট্রনিক দই মেকার। এ ছাড়া ঢাকার নিউ মার্কেট, মৌচাক, বায়তুল মোকাররম, মিরপরসহ বিভিন্ন মার্কেটেও মিলবে এমন দই মেকার। কয়েকটি ব্র্যান্ডের দই মেকার মেশিনে পাবেন এক বছরের ওয়ারেন্টি সেবা।

 

কেমন দাম

সিবেক ব্র্যান্ডের দই মেকারের দাম পড়বে এক হাজার ৪৩৫ টাকা। এ ছাড়া চায়নার বিভিন্ন ব্র্যান্ডের দই মেকার পাবেন এক হাজার ৫০০ থেকে তিন হাজার ৫০০ টাকার মধ্যে।

 

টিপস

► দই মেকারে দই বসানোর পর অযথা নাড়াচাড়া করা যাবে না।

► রান্নাঘরের তাপমাত্রা ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কম হলে দই মেকারটি পাঁচ মিনিট চার্জে রেখে দিন।

► দই তৈরির দুধে পানি না দেওয়াই ভালো। এতে ঘন ও খাঁটি দই পাওয়া যায়।

► দইয়ে কেমন মিষ্টি চান সেটা আগেভাগে ঠিক করে দুধে চিনি মেশান।

► দই তৈরির পর ভালো স্বাদের জন্য ফ্রিজে রেখে দিন।



মন্তব্য