kalerkantho


রূপচর্চা

রিবন্ডিং এবং কালার করার পরে

চুলের সাজে রিবন্ডিং ও কালার দুটিই জনপ্রিয়। কিন্তু এই স্টাইল করলে চুলের অতিরিক্ত যত্ন নিতে হয়। কেন ও কী করে যত্ন নেবেন জানালেন বিন্দিয়া বিউটি স্যালনের রূপবিশেষজ্ঞ শারমীন কচি

৩০ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০



রিবন্ডিং এবং কালার করার পরে

রিবন্ডিং চুল

রিবন্ডিং করা চুলের যত্ন শুরুতেই নিতে হয়। ঠিকঠাক যত্ন না পেলে চুল পড়া, রুক্ষ ও শুষ্ক হওয়া, আগা ফাটা, চুলে ভাঁজ পড়া, কিছু অংশ বাঁকা হয়ে যাওয়ার মতো নানা সমস্যার মুখোমুখি হতে হবে।

রিবন্ডিং করতে চুলে কেমিক্যাল ও হিট ব্যবহার হয়। ফলে চুল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তবে নিয়মিত পরিচর্যার মাধ্যমে রিবন্ডিং চুল দীর্ঘ সময় সুন্দর রাখা সম্ভব।

যা করবেন না

*    রিবন্ডিং করার পর তিন দিন পর্যন্ত চুলে পানি লাগানো ও কোনো হেয়ার প্যাক ব্যবহার করা যাবে না।

*    রোদে বের হওয়ার সময় ছাতা, স্কার্ফ, ক্যাপ ব্যবহার করতে হবে। এটা চুলকে রোদ থেকে সুরক্ষিত রাখবে।

*    চুলে কালার, হাইলাইটিং বা মেহেদি ব্যবহার করা যাবে না।

*    চুল শুকাতে হেয়ার ড্রায়ারের ব্যবহার বাদ দিতে হবে।

*    রিবন্ডিংয়ের এক মাস পর্যন্ত চুল  বেণি, পনিটেল বা কানের পেছনে নেওয়া যাবে না।

এটা করলে চুলে ভাঁজ পড়তে পারে।

*    চুলে কখনোই গরম পানি ব্যবহার করা যাবে না।

কিভাবে যত্ন নেবেন

*    সপ্তাহে অন্তত তিন দিন চুলে তেল দিতে হবে। নারিকেল তেলের সঙ্গে আমলকী ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করে মাথার স্ক্যাল্পে লাগিয়ে ম্যাসাজ করতে হবে।

*    সপ্তাহে অন্তত দুই দিন শ্যাম্পু করুন। শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার দিন। তবে চুলের গোড়ায় কন্ডিশনার লাগাবেন না।

*    শ্যাম্পু করার পর দুই লিটার পানিতে কয়েক ফোঁটা ভিনেগার মিশিয়ে ভেজা চুল  আবার ধুয়ে নিন। চুল মসৃণ থাকবে।

*    চুলের রুক্ষতা কমাতে শ্যাম্পু করার পর ১ মগ পানিতে ১ চামচ মধু মিশিয়ে তা দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে পারেন।

*    ১৫ দিন পর পর চুলে স্পা করুন। স্পা ক্রিম কিনে ঘরে বসেই স্পা করতে পারেন বা ঘরে বসেই হেয়ার স্পা তৈরি করে নিন। এ ক্ষেত্রে ২ টেবিল চামচ দুধ ও ২ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে চুলে লাগিয়ে ম্যাসাজ করুন। ১০ মিনিট রেখে শ্যাম্পু করে নিন।

*    দুই সপ্তাহ পর পর চুলে প্রোটিন ট্রিটমেন্ট করুন। ঘরে বসেই করতে পারেন। ২টি ডিম, ১ টেবিল চামচ মধু ও ১ টেবিল চামচ নারিকেল তেল মিশিয়ে ৩০ মিনিট চুলে মেখে তারপর শ্যাম্পু করুন।

*    চুলের আগা দুই মাস পর পর কাটুন। প্রতিদিন দুই থেকে আড়াই লিটার পানি পান করুন।

হেয়ার কালার

চুল কালার বা হাইলাইটের ট্রেন্ড চলছে। হেয়ার কালার করার পর যত্ন না নিলে কয়েক দিনের মধ্যেই চুল শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে যায়। কারণ হেয়ার কালারে রয়েছে ক্ষতিকর অ্যামোনিয়া, যা এক ধরনের কেমিক্যাল ব্লিচ। যা চুল শুষ্ক ও রুক্ষ করে। আর চুল পড়তে থাকে। তাই কালার করা চুলের বিশেষ যত্ন নিতে হয়।

যা করবেন না

যতটা সম্ভব হেয়ার ড্রায়ার, কার্লার বা চুল আয়রন করা থেকে বিরত থাকুন। এসব চুলের ভেতর থেকে ক্ষতি করে চুল রুক্ষ ও শুষ্ক করে দেয়।

কিভাবে যত্ন নেবেন

*    কালারের আগেই চুল স্বাস্থ্যকর ও ময়েশ্চারাইজ রাখার চেষ্টা করুন। কালার করার কমপক্ষে তিন সপ্তাহ আগে থেকে চুলে কোনো কেমিক্যাল ট্রিটমেন্ট করবেন না।

*    চুল শক্ত করতে এবং ভলিউম বাড়াতে কালার করার আগে নিয়মিত ডিপ কন্ডিশনিং করা প্রয়োজন। ডিম, কলা ও টক দই সমপরিমাণে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই হেয়ার প্যাকটি চুলের গোঁড়ায় এবং চুলে লাগিয়ে এক ঘণ্টা রাখুন। এরপর শ্যাম্পু করে নিন। এই প্যাক চুল ডিপ কন্ডিশনিং করে চুল নরম ও ময়েশ্চারাইজ করবে।

*    কালার চুলের জন্য বিশেষ কালার প্রটেক্টিং শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। এগুলো চুলের কালার ঠিক রাখে এবং চুল ময়েশ্চারাইজ করে।

*    সপ্তাহে অন্তত একবার হট অয়েল ট্রিটমেন্ট করুন। সমপরিমাণ অলিভ অয়েল, আমন্ড অয়েল, নারিকেল তেল একসঙ্গে মিশিয়ে হালকা গরম করে স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করুন। চুলের নিষ্প্রাণ ভাব কাটবে, চুল সিল্কি ও সুন্দর হবে।

*    চুল নরম ও উজ্জ্বল রাখতে লিভ ইন কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। এটা চুল থেকে ধুয়ে ফেলতে হয় না এবং চুল নরম রাখতে সাহায্য করে। শ্যাম্পু করার পর ভেজা চুলে লিভ ইন কন্ডিশনার দিন। স্ক্যাল্পের এক-দুই ইঞ্চি নিচ থেকে ব্যবহার করতে হবে। লিভ ইন কন্ডিশনার কেনার আগে এতে সিলিকন বা সালফার আছে কি না দেখে নিন। এই উপাদান চুলের জন্য ক্ষতিকর।

*    সপ্তাহে দুবার হেয়ার প্যাক লাগান। এর ফলে চুল প্রয়োজনীয় ময়েশ্চার পাবে এবং ফাটা বা রুক্ষ ভাব হবে না। রইল ঘরে বানানো কয়েক রকমের হেয়ারপ্যাক—

মধু ও কলা

সিকি কাপ মধু, ২টি পাকা কলা, সিকি কাপ অলিভ অয়েল—একসঙ্গে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত ভালো করে লাগান। ৩০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে নিন।

এছাড়াও শুধু পাকা কলা চটকে ১ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে পুরো চুলে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে নিতে পারেন।

ডিম ও মধু

২টি ডিম, আধা কাপ মধু, আধা কাপ টক দই নিন। প্রথমে ডিম ফেটিয়ে এর সঙ্গে মধু ও দই মেশান। এরপর চুলে লাগিয়ে ৪৫ মিনিট পর শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।

রোজমেরি ও অলিভ অয়েল

সিকি কাপ অলিভ অয়েল হালকা গরম করুন।   এবার ঠাণ্ডা করে কয়েক ফোঁটা রোজমেরি অয়েল মিশিয়ে স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করুন। ম্যাসাজ শেষে মাথায় প্লাস্টিকের ক্যাপ পরে ২০ মিনিট অপেক্ষা করে শ্যাম্পু করে নিন।

কলা ও অ্যাভাকাডো

কলা ও অ্যাভোকাডো একত্রে পেস্ট বানিয়ে চুলে লাগিয়ে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।

মেয়নেজ

মেয়নেজ চুলের প্রাকৃতিক উজ্জ্বল ভাব ফিরিয়ে আনে। সামান্য পরিমাণ মেয়নেজ পুরো চুলে লাগিয়ে নিন। তোয়ালে গরম পানিতে ভিজিয়ে চুল ২০ মিনিট পেঁচিয়ে রাখুন। এরপর ঠাণ্ডা পানিতে ধুয়ে ফেলুন।


মন্তব্য