kalerkantho


ভেষজদাওয়াই

আমাশয় হলে পরে

আমাশয়ের ভেষজ দাওয়াই দিলেন রাজধানীর তিব্বিয়া হাবিবিয়া কলেজের অধ্যক্ষ হাকীম ফেরদৌস ওয়াহিদ

৬ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



আমাশয় হলে পরে

► কচি বেল কুচি কুচি করে শুকিয়ে সংরক্ষণ করুন। এর মিহি চূর্ণ ১ চা চামচ পরিমাণ সকালে ও সন্ধ্যায় খালি পেটে এক মাস পান করুন। আমাশয় থেকে  মুক্তি পাবেন।

► ইসবগুল ৬ গ্রাম ও দই ১ কাপ একত্রে মিশিয়ে সকাল সন্ধ্যায় ১০ দিন পান করলে উপকার হয়।

► ডালিম পাতা ১০টি একত্রে পাটায় পিষে পানিটুকু সকাল ও সন্ধ্যায় ৭ থেকে ১০ দিন পান করুন। আমাশয় নিরাময় হবে।

► ধাইফুল চূর্ণ ১ চা চামচ আধা কাপ টক দইয়ে মিশিয়ে সকালে ও সন্ধ্যায় ২ থেকে ৩ দিন পান করলে আমাশয় সেরে যাবে।  

► লাল চন্দন ৫ গ্রাম আধা গ্লাস পানিতে ১২ ঘণ্টা ভিজিয়ে  রাখুন। এটা সকালে চুলায় জ্বাল দিয়ে ক্বাথ তৈরি করে রাখুন। তাতে সামান্য তালমিসরি মিশিয়ে দিনে ২ থেকে ৩ বার খালি পেটে ৩ থেকে ৫ দিন পান করুন।

► তজ চূর্ণ ৩ থেকে ৫ গ্রাম পরিমাণ ঢেঁকিছাঁটা চালে মেশান।

ওই চালের ভাত দিনে ২ বার খান। এভাবে ৫ থেকে ৭ দিন খেলে আমাশয় থাকবে না।

► বহেড়া চূর্ণ ৩ গ্রাম সকালে ও সন্ধ্যায় ৭ থেকে ১০ দিন খালি পেটে খেলে উপকার পাবেন।

► বিহিদানা ৫ গ্রাম ১ গ্লাস পানিতে ভিজিয়ে  রাখুন কয়েক ঘণ্টা। এরপর এটা চুলায় জ্বাল দিয়ে ক্বাথ করুন। ওই ক্বাথ দিনে ২ বার খালি পেটে পান করুন।

► কালকেশী বা ভৃঙ্গরাজ পাতার রস ১ চা চামচ সকালে ও সন্ধ্যায় আধা কাপ ছাগলের দুধে মিশিয়ে ৭ থেকে ১০ দিন পান করুন। আমাশয় সেরে যাবে।

► সাদা ধূপ মিহি চূর্ণ করে ২৫০ মিলিগ্রাম দিনে ২ থেকে ৩ বার খালি পেটে ২ থেকে ৩ দিন পান করলে রক্ত আমাশয়ে উপকার হবে।

► থানকুনি পাতার রস ২ চা চামচ সকাল-সন্ধ্যায় খালি পেটে টানা ১ সপ্তাহ পান করলে আমাশয় থাকবে না।

হ পাকা বিচিকলা দিনে ২টা চিবিয়ে খেতে হবে ৩ থেকে ৫ দিন। আমাশয় পুরোপুরি সেরে যাবে।

গ্রন্থনা : পিন্টু রঞ্জন অর্ক


মন্তব্য