kalerkantho


কত কাটের কুর্তা!

গ্রীষ্মের পোশাক আয়োজন নিয়ে ব্যস্ততা শুরু হয়ে গেছে ডিজাইনারদের। চৈত্র শুরু না হতেই সব হাউসে মিলছে টপস, কুর্তা, কামিজ, ফতুয়া আর কাফতানের মতো গরমের পোশাক। বাজার ঘুরে বিস্তারিত জানাচ্ছেন মারজান ইমু

৬ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



কত কাটের কুর্তা!

মডেল : চাঁদনী পোশাক : ওটু সাজ : রেড বিউটি স্যালন ছবি : কাকলী প্রধান

হাল ফ্যাশন আর এই আবহাওয়ায় ষোলআনা আরাম পেতে বাছতে পারেন ট্রেন্ডি টপস আর কুর্তা। কাটিং আর প্যাটার্নও আবহাওয়াবান্ধব।

ফ্যাশনেবল এসব টপস সব পরিবেশেই মানানসই। ফ্যাশন ব্র্যান্ড ওটুর ডিজাইনার টিমের প্রধান নির্বাহী মিজানুর রহমান জানান, বরাবরই পোশাক ডিজাইনে প্রাধান্য পায় আরাম আর স্বাচ্ছন্দ্য। শর্ট থেকে শুরু করে সেমি লং এমনকি লং টপসেও বয়স ও স্বাচ্ছন্দ্য মাথায় রেখেই ফেব্রিকস ও ডিজাইনের সমন্বয় করা হয়েছে। প্যাটার্ন ও কাটছাঁটে নতুনত্ব থাকছে। গাঢ় ও হালকা উভয় শেডের রং ব্যবহার হয়েছে।

 

রং বাহারি কাপড় 

গরমে জর্জেট, লিলেন, সুতি, শিফনের মতো ফ্রেব্রিকস বেশ আরামের। ফ্যাশন হাউস ঘুরে দেখা যায়, বেশির ভাগ পোশাকই বানানো হয়েছে জর্জেট, নিট ও সুতির কাপড়ে। তবে পার্টি বা দাওয়াতের জন্য আলাদা করা হয়েছে এক্সক্লুসিভ কালেকশন। সেখানে থাকছে সিল্ক, জর্জেট, হাফ সিল্ক, শিফন কিংবা অ্যান্ডি কাপড়ের টপস আর কুর্তা।

ফিউশন ডিজাইনে একাধিক ফ্রেব্রিকসের ব্যবহার চোখে পড়ে। আবার একরঙা কাপড়ের সঙ্গে প্রিন্টেড ফেব্রিকসের সমন্বয়েও বৈচিত্র্য এসেছে। ভারী বা জবরজং নকশা নয়; বরং ছিমছাম নকশা আর ফেব্রিকস দিয়েই এক্সক্লুসিভ কালেকশন আলাদা করা হয়েছে।

ফ্যাশন ডিজাইনার লিপি খন্দকার মনে করেন, সাদার পাশাপাশি গোলাপি, সবুজ, আকাশি, হালকা হলুদ, ম্যাজেন্টা, নীল, ফিরোজা, পেস্টের মতো উজ্জ্বল সব রঙের সঙ্গে এবার গরমে মেরুন, বারগ্যান্ডি, রয়্যাল ব্লুর মতো রঙের ব্যবহার দেখা যাবে।

 

কাটছাঁট

প্রায় সব ডিজাইনারই এবার বৈচিত্র্য রাখতে চেয়েছেন কার্টিংয়ে। কোমরে কুঁচি বা ইলাস্টিক অথবা বেল্টের নকশা নিচের দিকে ঘের দেওয়া, কোমর থেকে আলাদা রঙের কাপড়, লো হাইট কাট, লং প্যাটার্ন আনারকলি কাট ও টিউনিক প্যাটার্নসহ হরেক রকম বৈচিত্র্য আছে। ফ্যাশন হাউস বিশ্বরঙের ডিজাইনার বিপ্লব সাহা জানালেন, চৈত্র দিনের আরাম মাথায় রেখেই এ সময়ের পোশাকের ডিজাইন করা হয়েছে। দিনভর স্বাচ্ছন্দ্য পেতে একটু ঢিলেঢালা কাটিং প্যাটার্নে মনোযোগ দেওয়া হয়েছে। দিনের বেলায় স্লিভলেস বা শর্টস্লিভ চলতে পারে অনায়াসে। আবার সন্ধ্যার হিমেল হাওয়া বিবেচনায় রেখে মানানসই কিছু কটিও থাকছে কালেকশনে।

 

টপস বা কুর্তা যা-ই হোক, নিচের অংশে কাটে নতুনত্বের প্রয়াস চোখে পড়ার মতো। গোলাকার, নৌকা, ভি ইত্যাদি পুরনো কাটেও বৈচিত্র্য এসেছে। টপস-কুর্তার নিচের অংশে অর্থাৎ বটম লাইনে লেয়ারিং নকশা দেখা যাচ্ছে। সামনের অংশের চেয়ে পেছনের বেশ খানিকটা ঝুল নামানো কাটিংও আছে। কিছু কুর্তিতে বেশ খানিকটা ঘের দিয়ে তাতে অসমঞ্জস্য কাটিং ব্যবহার করা হয়েছে। ঘের ছাড়া টপস বা কাফতান কাটের টপসও মিলবে।

আবহাওয়া আর পরিবেশ বুঝে হাতার কাটিংয়েও এসেছে বৈচিত্র্য। ছোট হাতা, বড় হাতা, থ্রি-কোয়ার্টার, ম্যাগি হাতা ও স্লিভলেস সবই পাবেন গরমের টপসে।

 

নকশা বৃত্তান্ত

নিত্যদিনের ব্যবহারের টপসে স্ক্রিন প্রিন্ট, হাতের কাজ, টাইডাই কিংবা ভেজিটেবল ডাইয়ের বিভিন্ন নকশা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। কখনো হালকা এমব্রয়ডারি থাকছে গলা ও হাতায়। এ ছাড়া জর্জেট, শিফন, সিল্ক, ভিসকড ফেব্রিকসে জ্যামিতিক নকশা, হ্যান্ড এমব্রয়ডারি, পুঁতি, স্টোন বা ব্রোচের নকশার দেখা মিলছে। ফিউশন ডিজাইনে একাধিক ডিজাইন মাধ্যমে নকশা হচ্ছে। গলার কাছে, ওয়েস্ট লাইনে কিংবা হাতার দুই পাশ বরাবর অনেক কুঁচির ব্যবহার থাকছে এক্সক্লুসিভ কালেকশনে।

 

সঙ্গে কী

লেগিংস, জিন্স, ঢোলা প্যান্ট বা চুড়িদার পায়জামার সঙ্গে মানিয়েও যাচ্ছে অবলীলায়।

টপসের নিচের দিকের কাটিংবৈচিত্র্য থাকলে প্রিন্টেড  ট্রাউজার বা প্যান্ট বেছে নিতে পারেন। একরঙা কুর্তার সঙ্গে প্রিন্টেড ডেনিমও বেশ মানাবে। শার্ট টপসের সঙ্গে ঢোলা সালোয়ার বা ট্রাউজার মানানসই। সেমি লং থেকে লং ঘরানার টিউনিক, টপসের সঙ্গে লেগিংস, জেগিংস ও ওয়াইড-লেগ প্যান্ট ব্যবহার করতে পারেন। ঘের দেওয়া বা কলিদার কাটের টপসের সঙ্গে চুড়িদার সালোয়ারও বেমানান লাগবে না মোটেই।

 

কোথায় পাবেন ও দরদাম

বাহারি রঙের বৈচিত্র্যময় টপস-কুর্তি পাবেন ফ্যাশন হাউস আড়ংয়ের তাগা কালেকশনে, বিশ্বরঙ, রঙ বাংলাদেশ, কে ক্রাফট, মায়াসির, ড্রেসিডেলসহ সব ফ্যাশন হাউসের শোরুমে। ওটু, একস্ট্যাসি, ইয়েলো, ক্যাটস আই, সেইলর, ফ্রিল্যান্ডসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডশপে মিলবে পাশ্চাত্য ঘরানার ফ্যাশনেবল টপস।


মন্তব্য