kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কলার পুষ্টিগুণ

শুষ্ক ত্বক ঠিক করা, চুলের ঔজ্জ্বল্য বাড়িয়ে তোলা কিংবা শরীর থেকে ফ্যাট কমানো—এসব কিছু করতে পারে কলা। খুব কম ফলই আছে যা কলার মতো সর্বগুণসম্পন্ন। জেনে নিন এর গুণাগুণ। জানাচ্ছেন সাকিব ইমতিয়াজ

১৭ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



কলার পুষ্টিগুণ

♦    কলায় ভিটামিন ই৬ ও সি আছে। এ ছাড়া এতে উচ্চ পরিমাণে পানি থাকায় ত্বক হাইড্রেটেড থাকে।

এ ছাড়া কলায় উপস্থিত নিউট্রিয়েন্টস ত্বকের ইলাসটিসিটি বজায় রাখে।

♦    শুষ্ক ত্বকের আর্দ্রতা ফেরাতে অল্প কলা চটকে মুখে লাগিয়ে ৩০ মিনিট রেখে হল্কা গরম পানিতে মুখ ধুয়ে নিন।

♦    কলা শরীরকে সুরক্ষা দেয়। ফ্রি অক্সিজেন রেডিক্যালস ও বলিরেখার হাত থেকে রক্ষা করে। এ ছাড়া কলার খোসা ফেলে না দিয়ে মুখের ওপর ঘষে নিন। ১৫ মিনিট রাখার পর ঠাণ্ডা পানিতে ধুয়ে ফেলুন। এ ছাড়া অল্প একটু কলা চটকে তাতে কয়েক ফোঁটা গোলাপজল মিশিয়ে মুখে ৩০ মিনিট লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন।

♦    পা ফাটা খুব সহজেই সারিয়ে তোলে পাকা কলা। কলা চটকে ১০ মিনিট ভালো করে পায়ের গোড়ালি এবং ফাটা অংশে লাগিয়ে রাখুন। সপ্তাহে চার দিন করতে হবে। কয়েক দিনের মধ্যেই ফাটা দেখতে পাবেন না।

♦     কলায় উচ্চ পরিমাণে পটাশিয়াম থাকায় চোখের নিচের ফোলা ভাব ঠিক করে দেয়। এর জন্য এক টুকরো কলা চটকে চোখের তলার ফোলা অংশের ওপর ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

♦     ত্বকের কালো দাগ, অ্যাকনে ও ব্রণের মতো সমস্যার হাত থেকেও রক্ষা করে কলা। এর জন্য এক টুকরো কলার খোসা ব্রণ বা কালো দাগের ওপর খুব হাল্কা করে ঘষে নিন। খোসা রং পাল্টে কালো না হয়ে যাওয়া পর্যন্ত ঘষতে থাকুন। দিনে তিনবার এটা করুন।

♦    কলায় প্রাকৃতিক তেল কার্বোহাইড্রেট, পটাশিয়াম ও ভিটামিন আছে, যা চুলের জন্য খুব দরকারি। নিয়মিত কলা ব্যবহার করলে চুল মজবুত ও সিল্কি হবে। একটি পাকা কলা চটকে তাতে অল্প একটু আমন্ড তেল মিশিয়ে চুলে ১৫ মিনিট রেখে ঠাণ্ডা পানিতে ধুয়ে ফেলুন।

♦    কলায় ট্রিপটোফেন নামে এক ধরনের প্রোটিন আছে। এই প্রোটিন শরীরে সেরোটোনিন নামের হরমোন তৈরি করে, যা মনকে শান্ত রাখতে সাহায্য করে। যাঁরা ডিপ্রেশনে ভুগছেন, কলা তাঁদের জন্য খুব ভালো।

♦    একটা কলা খেলেই অনেক্ষণ আর খিদে পায় না। এ ছাড়া এই ফলে প্রাকৃতিক চিনি আছে, যা সঙ্গে সঙ্গে এনার্জি দেয়।

♦    কলায় উপস্থিত পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম ব্লাড প্রেশার কমায়। এ ছাড়া এতে পেক্টিন নামের ফাইবার আছে, যা খারাপ কোলেস্টেরল কমায়।

♦    কলায় প্রোবায়োটিক ব্যাকটেরিয়া আছে, যা শরীরকে ক্যালসিয়াম শোষণ করতে সাহায্য করে।


মন্তব্য