kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


রূপচর্চা

পাপড়ি বুঝে মাশকারা

চোখের সাজের গুরুত্বপূর্ণ অংশ মাশকারা। চোখের পাপড়ির ধরনের ওপর নির্ভর করে মাশকারা দেওয়ার ধরন। ভ্যালেনটিনার রূপবিশেষজ্ঞ খালেদা পারভীন জানালেন কোন ধরনের আইল্যাশে কেমন করে মাশকারা দেবেন

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



পাপড়ি বুঝে মাশকারা

চোখের সৌন্দর্য অনেকটা নির্ভর করে পাপড়ির ঘনত্বের ওপর। সবার চোখের পাপড়ি এক রকম নয়।

কারো ঘন, কারো পাতলা—পার্থক্য এটুকুই মনে হয়। আদতে তা নয়, ত্বকের মতো এরও রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন ধরন। কারো চোখের পাপড়ি অসমান হয়, কারো একেবারে সোজা। সব ধরনের চোখের পাপড়ির জন্য এক রকম মাশকারা মানায় না। পাপড়ি দেখে ঠিক করতে হয় কোন মাশকারা মানানসই।

 

দীর্ঘ হলে

পাপড়ি দীর্ঘ হলে কার্লিং ফর্মুলা উপযুক্ত। প্রথমে চোখের পাপড়ি ভালোভাবে ব্রাশ করে নিন, যাতে স্বাভাবিক দৈর্ঘ্য বেড়ে যায়। এবার চোখটা খোলা ও বড় দেখানোর জন্য কার্লার দিয়ে খানিকটা বাঁকিয়ে নিন। মাশকারা ব্যবহারের সময় পাপড়িগুলো একটু সাইড করে আঁচড়াতে হবে, যাতে আইলাইনার ছাড়াই এক রকম ক্যাট আই ইফেক্ট তৈরি হয়। এবার বাইরের ল্যাশ ধরে ধরে হালকা বাঁকিয়ে এমনভাবে ওপরের দিকে উঠিয়ে মাশকারা দিন, যাতে চোখ খোলা ও বড় মনে হয়।

 

 

ছোট হলে

পাপড়ি ছোট থাকলে এমন মাশকারা বেছে নিতে হবে, যেগুলোর ব্রাশ খুব ঘন ব্রিসলযুক্ত, কিন্তু চিকন। এ ধরনের ব্রাশ চোখের প্রতিটি পাপড়ি আলাদা করে ছুঁতে পারে। পশুর লোম দিয়ে তৈরি ব্রাশ এমন মাশকারার জন্য উপযুক্ত। ছোট ল্যাশের ক্ষেত্রে মাশকারা দেওয়ার পর পাপড়িগুলো আগের চেয়ে দীর্ঘ মনে হয় এবং প্রতিটি পাপড়ি সমান ও ঘন লাগে। এই দুই কাজ একসঙ্গে করতে পারে—এমন ঘন মাশকারা এ ধরনের পাপড়ির জন্য জুতসই।

 

একদম সোজা

একদম সোজা, সহজে বাঁকানো যায় না—এমন পাপড়ির ক্ষেত্রে আইল্যাশ কার্লার ব্যবহার খুব জরুরি। কার্লার দিয়ে পাপড়িগুলো বাঁকানোর পর মাশকারা ব্রাশ ব্যবহার করতে হবে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে। শুকিয়ে যাওয়ার ঠিক আগ মুহৃর্তে আঙুল ব্যবহার করে আবার একটু বাঁকিয়ে নিতে হবে, যাতে কার্লিং ইফেক্টটা দীর্ঘস্থায়ী হয়।

 

অন্যান্য

কিছু পাপড়ির প্রকৃতি একেবারেই ভিন্ন। এগুলোর এক পাশ আকারে ছোট, আরেক পাশ দীর্ঘ। এ ছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত পাপড়িও আছে, যা ঝরে পড়ে পাতলা ও ভেঙে যায়। চোখের পাতায় খুশকিজনিত সমস্যা দেখা দিলে এটা হয়। এ ক্ষেত্রে ল্যাশ সিরাম ব্যবহারও জরুরি। ক্ষতিগ্রস্ত পাপড়ির জন্য এমন ধরনের মাশকারা দরকার, যাতে ভেষজ উপাদান রয়েছে, বিশেষ করে এর মধ্যে ফাইটোকেরাটিন ও পান্থেনল আছে। এ দুটি উপাদান নতুন নতুন পাপড়ি জন্মাতে ও ঘন হতে সহায়তা করে।

মাশকারার ব্রাশ তুলনামূলক বড় হওয়া চাই। কিন্তু শেষের দিকটা সরু। এমনভাবে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে দিতে হবে, যেন পাপড়ি ঘন ও সমান লাগে। একবার ব্যবহারের পর অপেক্ষা করতে হবে। খানিকটা শুকিয়ে এলে দ্বিতীয়বার ব্যবহার করতে হবে।

 

মাশকারা তোলার উপায়

আইল্যাশে মাশকারা দেওয়া যতটা সময়সাপেক্ষ, তুলতেও ততটাই সময় লাগে। প্রথমে কোনো ময়েশ্চারাইজার বা ক্রিম দিয়ে পাপড়ির ওপরের মাশকারাটা একটু নরম করে নিতে হবে। তারপর ফেসওয়াশ দিয়ে আলতো করে ঘষে তুলতে হবে। বেশি জোরে ঘষা যাবে না। মেকআপ রিমুভিং টিস্যু দিয়ে কখনো আইল্যাশের মাশকারা তুলতে নেই। টিস্যুর ঘষায় আইল্যাস ক্ষতিগ্রস্ত ও পড়ে যেতে পারে।


মন্তব্য