kalerkantho


ডায়েট

ক্যালসিয়াম চাই, লালশাক খাই

আসফি মোহাম্মদ, পুষ্টিবিদ প্রুডেন্ট

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ক্যালসিয়াম চাই, লালশাক খাই

ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ শাকের মধ্যে লালশাক অন্যতম। লালশাকে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ অন্যান্য শাকের তুলনায় বেশি।

 

কী আছে

১০০ গ্রাম লালশাকে ক্যালসিয়াম রয়েছে ৩৭৪ মিলিগ্রাম। এ ছাড়া শর্করা ৪.৯ মিলিগ্রাম, প্রোটিন ৫.৩৪ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি ০.১০ মিলিগ্রাম, ক্যারোটিন ১১.৯৪ মিলিগ্রাম, অন্যান্য খনিজ ১.৬০ মিলিগ্রাম, খাদ্যশক্তি ৪৩ কিলো ক্যালোরি।

 

উপকারিতা

♦  রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা স্বাভাবিক রাখতে সহায়তা করে। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে।

♦  লালশাকের এন্টি অক্সিডেন্ট ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।

♦  মস্তিষ্ক ও হৃৎপিন্ড সচল রাখতে সহায়তা করে।

♦  ক্যালসিয়াম দেহের জন্য দরকারি  উপাদান। বিশেষ করে দাঁতের সুস্থতা, হাড় গঠনে এই শাক উপকারী।

♦  গর্ভবতী ও প্রসূতি মায়েদের দৈনিক ক্যালসিয়ামের চাহিদা অনেক বেশি।

অর্থাৎ  ১৫০০ থেকে ২০০০ মিলিগ্রাম। তাই লালশাক খেলে এই চাহিদা অনেকাংশে পূরণ হবে।

♦  বাড়ন্ত শিশুর ক্যালসিয়ামের অভাব হলে দাঁত ও হাড়ের গঠন ঠিকমতো হয় না, ফলে শিশুর দৈহিক গঠন দুর্বল হয় এবং হাঁটাও বিলম্ব হয়। ছোটবেলা থেকেই শিশুদের লালশাক খাওয়ার অভ্যাস করলে এ সমস্যা হবে না।

♦  ক্যালসিয়ামের অভাবে শিশুদের রিকেটস এবং বয়স্কদের অস্টিওপোরেসিস রোগ হয়। সুতরাং ক্যালসিয়ামের চাহিদা পূরণে অন্যান্য ক্যালসিয়ামযুক্ত খাদ্যের পাশাপাশি সস্তা ও সহজলভ্য লালশাক খাওয়া উচিত।

♦  লালশাক রক্তে হিমোগ্লোবিন বাড়ায়। ফলে যাদের রক্তস্বল্পতা রয়েছে, তারা নিয়মিত লালশাক খেলে এ ঘাটতি পূরণ হবে।

♦  লালশাক ভিটামিন ‘এ’-তে ভরপুর। লালশাক নিয়মিত খেলে দৃষ্টিশক্তি ভালো থাকে এবং অন্ধত্ব ও রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করা যায়।

♦  ক্যালরির পরিমাণ কম থাকায় ডায়াবেটিস রোগীদের জন্যও লালশাক যথেষ্ট উপকারী। এ ছাড়া এটি শরীরের ওজন হ্রাস করে।

♦  লালশাক খাবার পরিপাকে সহায়তা করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

♦  ভিটামিন ‘সি’র অভাবজনিত স্কার্ভি রোগ প্রতিরোধ করে।

♦  দাঁতের মাড়ি ফোলা প্রতিরোধ করে।


মন্তব্য