kalerkantho

সেরা পাঁচ ব্যাটিং

রাহেনুর ইসলাম

৪ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



সেরা পাঁচ ব্যাটিং

 

আগের আসরগুলোতে বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ের উদাহরণ হয়ে আছে অনেক ইনিংস। আগুনঝরা পেস বোলিং অথবা মায়াবী ঘাতকের স্পিন ঘূর্ণিতে নাকাল প্রতিপক্ষ। এসবের মধ্য থেকে সেরা পাঁচ খুঁজে নেওয়া কঠিন। সেটিই করা হয়েছে এখানে।

 

১. ক্রিস গেইল, ৫৭ বলে ১১৭, ২০০৭

ক্রিস গেইল নামটাই টি-টোয়েন্টির ‘ব্র্যান্ড’।    টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে হাফ সেঞ্চুরি করাটাই তখন পর্যন্ত ছিল দুরূহ ব্যাপার, সেখানে  সেঞ্চুরি এই জ্যামাইকানের! প্রোটিয়াদের বিপক্ষে ৭টি চার ও ১০ ছক্কায় ৫৭ বলে খেলেন ১১৭ রানের ইনিংসটি। তাঁর ওই ১০ ছক্কা এখন পর্যন্ত ২০ ওভারের বিশ্ব আসরে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ছয়ের মার।

২. ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, ৫৮ বলে ১২৩, ২০১২

২০১২ সালে  বাংলাদেশকে  পুড়িয়েছিল ব্রেন্ডন ম্যাককালামের ব্যাট। মাত্র ৫৮ বলে ১২৩ রানের টর্নেডো  ইনিংসটি তিনি সাজিয়েছিলেন ১১টি চার ও ৭টি ছক্কায়। তাঁর ওই ইনিংসটিই এখন পর্যন্ত ক্রিকেটে সংক্ষিপ্ত সংস্করণের সর্বোচ্চ।   শফিউল ইসলামের পর পর ৩ বলে ৬, ৪, ৪ হাঁকানোর পর ১৯তম ওভারে ইলিয়াস সানির ৩ বলে ১৪ রান নেওয়ার পথে পূরণ করেন সেঞ্চুরি। আবদুর রাজ্জাকের বলে পরের ওভারে ২টি ছয় মেরে ১২৩ রানে থামেন সম্প্রতি অবসর নেয়া এই কিউই হার্ডহিটার।

৩. মাইক হাসি, ২৪ বলে ৬০, ২০১০

পাকিস্তানের বিপক্ষে হারতে বসা সেমিফাইনালটা অস্ট্রেলিয়া ৩ উইকেটে জিতে নিয়েছিল মাইক হাসির ইনিংসেই।   শেষ ৬ বলে দরকার ১৮। সাঈদ আজমলের প্রথম বলে সিঙ্গেল নিয়ে মিচেল জনসন স্ট্রাইক দেন হাসিকে। তখন হার-জিতের হিসাবটা দাঁড়ায় ৫ বলে ১৭। শেষ বল পর্যন্ত আর অপেক্ষায় থাকতে হয়নি। পরের চার বলে ২২ রান নিয়ে (৬+৬+৪+৬) অবিস্মরণীয় এক জয় এনে দেবার পর জয়ের হাসি ফোটে হাসির মুখে।

৪. যুবরাজ সিং, ১৬ বলে ৫৮, ২০০৭

কিংসমেডের ওই ম্যাচটি এখনো হয়তো দুঃস্বপ্ন হয়ে ধরা দেয় স্টুয়ার্ট ব্রডের ঘুমের মধ্যে।   এমন মার কী কখনো ভোলা যায়! ইংলিশ পেসারের ৬ বলের ৬টিতে যে ওভার বাউন্ডারি মেরেছিলেন যুবরাজ। মাত্র ১২ বলে হাফ সেঞ্চুরি করে টি-টোয়েন্টিতে দ্রুততম ফিফটি’র রেকর্ড গড়েছিলেন যুবরাজ।

৫. বিরাট কোহলি, ৪৪ বলে ৭২, ২০১৪

মিরপুরে দক্ষিন আফ্রিকার ১৭৩ রান তাড়া করাটা সহজ ছিল না। কঠিন সে কাজটাই জলবত্ তরলং বিরাট কোহলির ব্যাটে। ৪৪ বলে ৫ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় অপরাজিত ৭২ রানের ইনিংস খেলে ভারতকে আরো একবার টি-টোয়েন্টির বিশ্বআসরের ফাইনালে তোলেন কোহলি।


মন্তব্য