kalerkantho


নতুন ইসলামি রাজনৈতিক জোটের আত্মপ্রকাশ কাল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১০:০২



নতুন ইসলামি রাজনৈতিক জোটের আত্মপ্রকাশ কাল

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশের রাজনীতিতে নতুন একটি ইসলামি জোটের আত্মপ্রকাশ ঘটতে যাচ্ছে। জোটের নেতৃত্বে থাকবেন তরীকত ফেডারেশনের নেতা ও সংসদ সদস্য এম এ আউয়াল। সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন জোটকে শক্তিশালী করতে এই জোট কাজ করবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

সূত্র জানায়, দীর্ঘ প্রক্রিয়া শেষে জোট গঠনের কাজ চূড়ান্ত হয়েছে। আগামীকাল শনিবার বেলা ১১টায় রাজধানীর হোটেল ইম্পেরিয়াল মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে জোটের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। এই জোটের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে থাকছেন ইসলামি ঐক্যজোটের একাংশের চেয়ারম্যান মিজবাহুর রহমান চৌধুরী-এমনটিই সিদ্ধান্ত হয়েছে। কো-চেয়ারম্যান ও মুখপাত্র হিসেবে থাকছেন তরীকত ফেডারেশনের সাবেক মহাসচিব এম এ আউয়াল এমপি। আর মহাসচিব হিসেবে থাকছেন গণতান্ত্রিক ইসলামিক মুভমেন্টের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. নূরুল ইসলাম।

এ বিষয়ে সংসদ সদস্য এম এ আউয়াল কালের কণ্ঠকে বলেন, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের ইসলামিক দলগুলোকে সংগঠিত করতে দীর্ঘদিন ধরে কাজ চলছিল। আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর তার একটি আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ ঘটতে যাচ্ছে। জাতীয় উন্নয়ন ও অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে জোট কাজ করবে। 

তিনি বলেন, নির্বাচনকে সামনে রেখে অপশক্তি সক্রিয় রয়েছে। ষড়যন্ত্রের জাল বুনছে। ইসলামি শক্তির সঙ্গে গণতান্ত্রিক শক্তির ঐক্যবদ্ধ হওয়ার মধ্যে দিয়ে এই ষড়যন্ত্রের মোক্ষম জবাব দেবে জনগণ। 

তিনি আরো বলেন, এই জোটের সঙ্গে ছোট-বড় ১৫টি দল ও সংগঠন থাকছে। যাদের বেশীর ভাগই মাদ্রাসা ভিত্তিক রাজনীতি করে। জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে এই জোট কাজ করবে বলেও তিনি জানান।

এ প্রসঙ্গে সংশ্লিষ্টরা জানান, নতুন ইসলামি জোট গঠনের প্রক্রিয়ায় আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের পৃষ্টপোষকতা রয়েছে। এমপি এম এ আউয়াল তরীকত ফেডারেশনের মহাসচিবের দায়িত্বে থাকাকালে তাকে জোট গঠনের প্রক্রিয়া শুরুর দায়িত্ব দেওয়া হয়। গত দেড় বছরে তিনি কওমি মাদ্রাসাভিত্তিক দলগুলোর সঙ্গে বৈঠক করেন। তাদের দাবির প্রেক্ষিতে কওমি মাদ্রাসার সার্টিফিকেটের স্বীকৃতি দিতে সংসদে বিল এনেছেন। অন্যান্য দাবির বিষয়েও সরকার আন্তরিক। ওই সকল দাবি বাস্তবায়নের বিষয়টি নিয়ে নতুন ইসলামি জোট সারা দেশে প্রচারণা চালাবে। স্ব স্ব রাজনৈতিক দলের পাশাপাশি আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন জোটের প্রার্থী হিসেবে ইসলামি জোট নেতারা সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলেও জানা গেছে।



মন্তব্য