kalerkantho


‘আন্দোলনের সময় বিদেশ চলে যাবেন না’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৬:৪৯



‘আন্দোলনের সময় বিদেশ চলে যাবেন না’

আন্দোলনের সময় চিকিৎসার নামে বিএনপির নেতাদের বিদেশে চলে না যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন দলটির তৃণমূল নেতাকর্মীরা।

শুক্রবার (০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮) জাতীয় প্রেসক্লাবে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম আয়োজিত আলোচনা সভায় তারা এ অনুরোধ করেন।

‘ষড়যন্ত্রের রাজনীতির অবসান এবং গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজনীয়তা’ শীর্ষক এই আলোচনা সভার আয়োজন করে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। প্রধান বক্তা ছিলেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জাতীয় ঐক্যের বিষয়ে বলেছেন, আওয়ামী লীগ ছাড়া জাতীয় ঐক্য হবে না। তবে আমরা বলতে চাই যে দলের সরকার অগণতান্ত্রিকভাবে ক্ষমতায় রয়েছে, তাদের সঙ্গে জাতীয় ঐক্য আমরা করতে চাই না।

তিনি বলেন, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া অসুস্থ। তাকে কারাগারে আটকে রেখে বিচার করা হচ্ছে। সংবিধানের ৩৫/৩ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী অভিযুক্তকে প্রকাশ্যে বিচার করার কথা বলা হয়েছে। এই সরকার তা না মেনে খালেদাকে আটকে রেখে বিচার করতে চাইছে। এই ষড়যন্ত্রমূলক বিচার আমরা মেনে নেবো না।

সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান বলেন, সরকার আন্দোলনে ভীত হয়ে আবার ষড়যন্ত্র করে  ক্ষমতায় আসার চেষ্টা করছে। বিএনপির নেতাকর্মীদের জেলে ঢোকাচ্ছে।

এসময় সরকারের সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে বিএনপির নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান তিনি।

সভায় বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বক্তব্য রাখেন। ফরিদগঞ্জ থানা বিএনপির যুগ্ম-সম্পাদক ইসমাইল তালুকদার খোকন বলেন, অতীতে দেখেছি আন্দোলন এলে বিএনপির অনেক নেতা চিকিৎসার নামে বিদেশে পালিয়ে যান। এখন আবার আন্দোলনের সময় আসছে। এমন বিএনপির নেতাদের কাছে 
আমরা অনুরোধ করবো- আন্দোলনের সময় চিকিৎসার নামে বিদেশে চলে যাবেন না।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি ফরিদ উদ্দিন বলেন, আন্দোলনের সময় অনেক বিএনপির নেতা শুধু বিদেশে নয়,  জেলায় গিয়েও বসে থাকেন। এ সময়টাতে বিএনপির নেতাদের জেলায় গিয়ে বসে না থাকার জন্য আমি অনুরোধ করছি।
 
সভায় আরও বক্তব্য রাখেন- নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরামের সভাপতি সাঈদ আহমেদ আসলাম, সাধারণ সম্পাদক এম জাহাঙ্গীর আলম, বিএনপি নেতা আবু নাসের মুহাম্মদ রহমতুল্লাহ প্রমুখ।



মন্তব্য