kalerkantho


গাজীপুর সিটি নির্বাচন

জাহাঙ্গীর আলমের বক্তব্যে ষড়যন্ত্র দেখছে বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

৩০ মে, ২০১৮ ০৪:০২



জাহাঙ্গীর আলমের বক্তব্যে ষড়যন্ত্র দেখছে বিএনপি

আওয়ামী লীগের মেয়র পদপ্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম গত সোমবারের সংবাদ সম্মেলনে যে দাবি করেন, নগরজুড়ে গত দুই দিন ধরে তা নিয়ে আলোচনা চলছে।

গত সোমবার জাহাঙ্গীর আলম নগরীর হারিকেন সড়কের নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলন করে জরুরি ভিত্তিতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের প্রতি বিএনপির মেয়র পদপ্রার্থীর বাসাবাড়ি ও স্থাপনায় তল্লাশি চালানো, এমনকি হাসান সরকারের কাছে বিভিন্ন জেলা থেকে আসা বিএনপি নেতাদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান। কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, ‘হাসান সরকার গাজীপুরের মানুষকে হুমকি দিয়ে পিষে মারার কথা বলেছেন। এ কারণে তাঁর কাছে বোমা বা এ জাতীয় ধ্বংসাত্মক সরঞ্জাম থাকতে পারে। তার মাধ্যমে গাজীপুরবাসীর কোনো ক্ষতি হলে, তার দায়-দায়িত্ব হাসান সরকারকেই নিতে হবে।’ 

জাহাঙ্গীর আলমের এ বক্তব্যকে নতুন ষড়যন্ত্রের আভাস বলে মনে করছেন বিএনপি নেতারা। হাসান উদ্দিন সরকারের মিডিয়া সেলের প্রধান, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ডা. মাজহারুল আলম বলেন, আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমের বক্তব্যে বিস্মিত। গাজীপুর নগরীতে এখন শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিরাজ করছে। অথচ তিনি হাসান সরকারের বাসা-বাড়িতে তল্লাশির দাবি করেছেন। বিএনপি নেতাদের গ্রেপ্তারের কথা বলছেন। এসব ভালো ইঙ্গিত বহন করে না। ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ায় হাসান সরকার বলেন, ‘আমি বলেছি, নির্বাচনে ভোট ডাকাতি হলে গাজীপুরের মানুষ ডাকাতদের প্রতিহত করবে। রং ফলিয়ে এ কথা উল্টো অর্থ বানিয়ে আওয়ামী লীগ সিল মারার নির্বাচন করতে যাচ্ছে। তারা কোনো আইন মানছে না। মন্ত্রী-এমপি প্রতিদিন এসে ইফতার মাহফিলে নৌকার জন্য ভোট চাচ্ছে। বারবার অভিযোগ জানানো হলেও নির্বাচন কমিশন আমলে নিচ্ছে না। আমরা সন্দেহ করছি নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগ নতুন ষড়যন্ত্র করছে।’ 

জাহাঙ্গীর আলম সংবাদ সম্মেলনে আরো অভিযোগ করেছেন বিএনপি পরাজয়ের ভয়ে আদালতে রিট করিয়ে নির্বাচন স্থগিত করিয়েছে। বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ রিটকারীর আইনজীবী ছিলেন। হাসান সরকার বলেছেন, ‘জাহাঙ্গীর আলম অসত্য তথ্য প্রকাশ করে মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন। রিটকারী আওয়ামী লীগ নেতা। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে রিট করার সময় মওদুদ আহমদ তাঁর আইনজীবী ছিলেন। ৬ মে রিটের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতারাই। 

দুই প্রার্থীর তৎপরতা 
জাহাঙ্গীর আলম মঙ্গলবার নগরীর ৮ নম্বর ওয়ার্ডের হরিণাতলা পারিজাত প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ, ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে মইশান বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ ও ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউলতিয়া জহির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে পৃথক তিনটি ইফতার ও দোয়া মাহফিলে অংশ নেন। মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত এসব দোয়া ও আলোচনাসভায় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি ও গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মো. জাহিদ আহসান রাসেল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। 

৮ নম্বর ওয়ার্ডে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শেখ মো. আক্কাছ আলীর সভাপতিত্বে আ. রহমান মাস্টারের সঞ্চালনায় গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকে মো. আতাউল্লাহ মণ্ডলের সভাপতিত্বে ১৯ ও ২১ নম্বর ওয়ার্ডে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মো. জাহিদ আহসান রাসেল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগ, মহানগর আওয়ামী লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষক লীগ, যুবলীগ, তাঁতি লীগ, ছাত্রলীগসহ সব অঙ্গসংগঠনের নেতারা ইফতার ও দোয়া মাহফিলে অংশ নেন। 

এ সময় অন্যদের মধ্যে সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সহসভাপতি শফিকুল ইসলাম বাবুল, মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মো. বিল্লাল হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আতাউল্লাহ মণ্ডল, এস এম মোকছেদ আলম, সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক মো. আসাদুল্লাহ চেয়ারম্যান, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মো. খালেকুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

বিএনপির মেয়র প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার গতকাল কাউলতিয়া পোরাবাড়ি জামে মসজিদ ময়দানে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নানের সুস্থতা কামনায় দোয়া ও ইফতার মাহফিলে বলেন, মেয়র এম এ মান্নান আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন। জনগণের ভোটে নির্বাচিত মেয়র মান্নানকে অন্যায়ভাবে কারাগারে বন্দি রেখে নগরবাসীকে অপমান করা হয়েছে। তিনি যাতে নগরীর উন্নয়নে কোনো ভূমিকা রাখতে না পারেন সে জন্য তাঁকে জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে। এত প্রতিকূলতার পরও মেয়র মান্নান নগরবাসীর সেবায় সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়েছেন। হাসান সরকার বলেন, ‘আমি নির্বাচিত হলে মেয়র এম এ মান্নানের অসমাপ্ত কাজ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সম্পন্ন করব।’ 

কাউলতিয়া অঞ্চল নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক সাবেক কাউলতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে দোয়া ও ইফতার মাহফিলে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলন, সাধারণ সম্পাদক কাজী সাইয়েদুল আলম বাবুল, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক সোহরাব হোসেন, কাপাসিয়া উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন সেলিম, জেলা যুবদলের সভাপতি এমদাদ খান প্রমুখ নেতারা।



মন্তব্য