kalerkantho


সরকার এক ভয়ঙ্কর মরণ খেলায় মেতে উঠেছে : রিজভী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩১ জানুয়ারি, ২০১৮ ২৩:০৬



সরকার এক ভয়ঙ্কর মরণ খেলায় মেতে উঠেছে : রিজভী

সরকার যে এক ভয়ঙ্কর মরণ খেলায় মেতে উঠেছে তার নির্দশন সুস্পষ্ট হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। 

তিনি আরো বলেন, প্রতিদিনের মতো আজও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া আদালতে যাত্রাপথে রাস্তার উপস্থিত অভ্যর্থনাকারী প্রায় শতাধিক নেতা-কর্মীকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। এখন পর্যন্ত প্রায় ২০০ নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের লাঠিপেঠায় ৫০ জনের অধিক নেতা-কর্মী আহত হয়েছে। 

বুধবার সন্ধ্যায় নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী অভিযোগ করে বলেন, মহিলা দলের মহানগর দক্ষিণের সভানেত্রী রাজিয়া আলীম, ছাত্র দলের সহ-গণযোগাযোগ বিষয়ক সম্পাদক আমজাদ হোসেন শাহাদাৎ, যুবদল নেতা আবদুল জাব্বার, মোহাম্মদ রুবেল, মোহাম্মদ হানিফ, মামুন আহম্মেদ, মো. দুলাল, রাকিব আকন্দ, মহিলা দলের হোসনা, পারভিন, দিতি, লায়লা, জাকিয়া, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির মাহফুজুর রহমান, চকবাজার থানার ফরিদ উদ্দিন জুয়েল, ইবরাহিম, মাহবুব খান, শোকন মিয়া, মিন্নত আলী, উত্তরা থানার শাহ আলম, যাত্রাবাড়ি থানার আমিনুর রহমান, নিউমার্কেট থানার মতিউর রহমানসহ শতাধিক নেতাকর্মীকে পুলিশ আটক করেছে।

এছাড়া দলের যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. ফাওয়াজ হোসেন শুভ, সহ যুব বিষয়ক সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী, কমিশনার মীর আশরাফ আলী আজমের বাসায় পুলিশি তল্লাশির ঘটনার নিন্দা জানান তিনি।

এ সময় বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসভবন ‘ফিরোজা’র সামনে অতিরিক্ত পুলিশ ও সাদা পোষাকধারী সদস্যের উপস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেন রিজভী বলেন, আমরা কিছুক্ষণ আগে জানতে পারলাম, দলের চেয়ারপারসনের গুলশানের বাসার সামনে সাদা পোষাকধারী গোয়েন্দা বিভাগের সদস্য ও আইনশৃঙ্খলার বাহিনী অসংখ্য সদস্য অবস্থান নিয়েছে। আমরা জানি না এর কারণ কী? সরকার যে এক ভয়ঙ্কর মরণ খেলায় মেতে উঠেছে তার নির্দশন সুস্পষ্ট হয়ে উঠেছে। পতনের আগে মানুষ হঠাৎ করে একটু গা ঝাড়া দেয়। এটা তার ইঙ্গিতবহ কিনা আমরা জানি না।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সহ দফতর সম্পাদক বেলাল আহমেদ ও যুব দল দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহিন, সাবেক ছাত্র নেতা সিরাজুল ইসলাম খান প্রমুখ।

 



মন্তব্য