kalerkantho


বিএনপির চক্রান্ত ভেস্তে দিন, ঘরকাটা ইঁদুর শায়েস্তা করুন : তথ্যমন্ত্রী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৯:৪২



বিএনপির চক্রান্ত ভেস্তে দিন, ঘরকাটা ইঁদুর শায়েস্তা করুন : তথ্যমন্ত্রী

ফাইল ছবি

তথ্যমন্ত্রী ও জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, নতুন বছরে খালেদা জিয়া-বিএনপির নির্বাচন বানচালের চক্রান্ত ভেস্তে দিয়ে যথাসময়ে নির্বাচন এবং একইসাথে ব্যাংক-বাজার লুটেরা, দলবাজ-দুর্নীতিবাজ ঘরকাটা ইঁদুরদের শায়েস্তা করতে হবে। আজ সোমবার দুপুরে রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে জাতীয় পাটির ৩২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সভায় তিনি এ কথা বলেন।

নতুন বছরে জাতির সামনে ছয়টি চ্যালেঞ্জ রয়েছে উল্লেখ করে হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘খালেদা জিয়া-বিএনপি’র নির্বাচন বানচালের চক্রান্ত ভেস্তে দেওয়া, যথাসময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠান, জঙ্গি-জামায়াত-রাজাকার ও তাদের দোসর বিএনপিকে ক্ষমতার বাইরে রাখা, উন্নয়নের ধারাকে এগিয়ে নেওয়া, দেশের ইতিহাস-সংস্কৃতির শেখরের সাথে জনগণের ঘনিষ্ঠতা গড়ে তোলা এবং মহাজোটের ছাতার তলে ব্যাংক-বাজার লুটেরা, দলবাজ-দুর্নীতিবাজ-ঘরকাটা ইঁদুর সমতুল্যদের শায়েস্তা করা-এ ছয় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় মহাজোটের ঐক্য ধরে রাখতে হবে।’ 

‘একবার মুক্তিযোদ্ধার সরকার, আরেকবার রাজাকারের সরকার- এই মিউজিক্যাল চেয়ার খেলা আগামী নির্বাচন থেকেই বন্ধ’-এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে ইনু বলেন, ‘এ কারণেই আগামী নির্বাচনকে দেখতে হবে যুদ্ধের চশমা দিয়ে। 

বিএনপির কার্যকলাপের সমালোচনা করে জাসদ সভাপতি বলেন, ‘কী ক্ষমতায়, কী ক্ষমতার বাইরে-বিএনপির একটিই লক্ষ্য, ’৭৫ পর বাংলাদেশকে যেভাবে জবরদখল করা হয়েছিল, সেভাবেই দেশকে পাকিস্তান-আফগানিস্তানের রক্তাক্ত পথে ঠেলে দেওয়া। এ কারণেই তাদের সাথে কোনো মিটমাট নয়।’ 

‘যারা মিটমাট তত্ত্ব দেন, আসলে তারা গণতন্ত্র ও সামরিকতন্ত্র, মুক্তিযোদ্ধা ও রাজাকার এবং বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মাঝে দোদুল্যমান। একটু গণতন্ত্র, একটু সামরিকতন্ত্র ও একটু ধর্মতন্ত্র মিলে তারা খিচুড়িতন্ত্র কায়েম করে বিএনপি-জঙ্গি-জামায়াত-রাজাকারদের গণতন্ত্রে হালাল করতে চায়’- বলেন হাসানুল হক ইনু।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন জেপি (মঞ্জু) এর মহাসচিব শেখ শহিদুল ইসলাম, বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, জেপির অতিরিক্ত মহাসচিব সাদেক সিদ্দিকী প্রমুখ।


মন্তব্য