kalerkantho


বাংলাদেশের মানুষ সন্ত্রাসী দলকে প্রত্যাখান করবে : নাসিম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৮:১৬



বাংলাদেশের মানুষ সন্ত্রাসী দলকে প্রত্যাখান করবে : নাসিম

আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, ২০১৯ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচন বাংলাদেশের মানুষ সন্ত্রাসী দল ও দলের প্রতীক ধানের শীষকে প্রত্যাখান করবে।  
আজ রবিবার কুমিল্লা জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলায় নবনির্মিত বাগমারা ২০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি হাসপতাল উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।
মোহাম্মদ নাসিম বলেন, সংবিধান মোতাবেক ২০১৯ সালেই জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ধানের শীষ সন্ত্রাসী দল হিসেবে আজ জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হয়েছে। তাই বাংলার মানুষ সন্ত্রাসী দল হিসেবে ধানের শীষ মার্কা খালেদা জিয়াকে প্রত্যাখান করবে।
কুমিল্লার সিভিল সার্জন ডা. মো: মজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পরিকল্পনা মন্ত্রী স্থানীয় সংসদ সদস্য আ হ ম মুস্তফা কামাল, স্বাস্থ্য সচিব মো: সিরাজুল ইসলাম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ডা: মো: আবুল কালাম আজাদ, স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এমএ মুহিত, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা মো: আবদুল মালেক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
আওয়ামী লীগ সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বলেন, আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক উন্নয়নের প্রতীক হিসেবে শেখ হাসিনা আবার নির্বাচনে বিজয়ী হবেন।  
তিনি বলেন, ২০১৪ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হওয়ায় দেশের অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। অপর দিকে বিএনপি এ সময়ে নির্বাচনে অংশ না নিয়ে দেশে জ্বালাও পোড়াও, খুন ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে দেশকে সন্ত্রাসী রাষ্ট্র হিসেবে গড়তে চেয়েছিল। কিন্তু শেখ হাসিনা তাঁর যোগ্য নেতৃত্বে ও সাহসী ভূমিকায় বিএনপির সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে দিয়ে দেশকে উন্নয়নে আলোকিত বাংলাদেশ হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি লাভ করিয়েছেন।  
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলার মানুষকে ভালোবাসেন বলেই গ্রাম বাংলায় কমিউনিটি ক্লিনিক করে স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছেন।

দেশে প্রতিষ্ঠিত প্রায় ১৪ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপন করে বিনামূল্যে তৃণমূল পর্যায়ে সাধারণ মানুষের সেবাদান নিশ্চিত করা হয়েছে। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর দেশের প্রতিটি থানায় স্বাস্থ্য কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন। তার ধারাবাহিকতায় দেশের ১৬ কোটি মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার জন্য বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন। দেশে বর্তমানে স্বাস্থ্য খাতের ব্যাপক উন্নয়ন হওয়ায় আন্তর্জাতিকভাবে শেখ হাসিনা পুরস্কার পেয়েছেন।  
আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশের সকল নাগরিকের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করা হবে এবং ক্ষুধা-দারিদ্র মুক্ত বাংলাদেশ বিশ্বে ২৮ তম দেশ হবে।  
তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অব্যাহত উন্নয়নের অগ্রগতি আর থেমে থাকবেনা। একজন যোগ্য ক্যাপ্টেন হিসেবে প্রধানমন্ত্রী দেশকে পৃথিবীর মানচিত্রে উন্নত দেশ হিসেবে গড়ছেন।  
স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর প্রায় ৭ কোটি টাকা ব্যয়ে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার বাগমারা ২০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারী হাসপাতাল নির্মাণ করে।


মন্তব্য