kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সংসদে পরিবেশ ও বন মন্ত্রী

‘রামপাল নিয়ে সংবাদ মাধ্যমের প্রচারনা অবৈজ্ঞানিক’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২০:২০



‘রামপাল নিয়ে সংবাদ মাধ্যমের প্রচারনা অবৈজ্ঞানিক’

সুন্দরবনের অদূরে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করা হলে সুন্দরবন অঞ্চলের ব্যাপক ক্ষতি হবে বলে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে ও প্রচার মাধ্যমে যে প্রচারণা চালানো হচ্ছে তার বিজ্ঞানসম্মত কোনো ভিত্তি নেই বলে দাবি করেছেন পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু। আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এ তথ্য জানান।

সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য পিনু খানের লিখিত প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী আরো জানান, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের ফলে সুন্দরবন অঞ্চলে কোনো ক্ষতি হবে না। কারণ বাগেরহাট জেলার রামপাল উপজেলায় প্রস্তাবিত এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াট কয়লাভিক্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের অবস্থান প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ সুন্দরবনের নিকটে হওয়ায় আলোচ্য প্রকল্পের পরিবেশগত প্রভাব সমীক্ষা প্রতিবেদন প্রণয়নের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। প্রস্তাবিত বিদ্যুৎ কেন্দ্র যাতে সুন্দরবনের উপর কোনো ধরনের নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে না পরে তা নিশ্চিত করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, সুন্দরবনের পরিবেশ সুরক্ষায় প্রকল্পে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। প্রস্তাবিত বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে নির্গত বায়ুর মানমাত্রা পরিবেশ সংরক্ষণ বিধিমালা, ১৯৯৭ এবং ওয়াল্ড ব্যাংক গাইডলাইন এ উল্লেখিত নির্ধারিত মানমাত্রার মধ্যে থাকবে। কোনো ধরনের ক্ষতিকর পানি নদীতে নির্গমন করা হবে না এবং ইপিটিতে পরিশোধিত পানি যথাসম্ভব পুন:ব্যবহার করা হবে।

একই প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, প্রস্তাবিত বিদুৎ কেন্দ্রে শূন্য দশমিক ৬ শতাংশ এর চেয়ে কম সালফারযুক্ত উন্নতমানের বিটুমিনাস কয়লা ব্যবহার করা হবে যা অস্ট্রেলিয়া/ ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানী করা হবে। এছাড়া উচু চিমনি, পানি দূষণ নিয়ন্ত্রণের জন্য মিটিগেশন মের্জার্স ইত্যাদি রাখা হয়েছে। কয়লা থেকে যাতে দূষণ না হয় তারও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।


মন্তব্য