kalerkantho


'প্রধানমন্ত্রী উন্নয়ন ও সততার নেত্রী আর খালেদা ষড়যন্ত্রের নেত্রী'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৯ মার্চ, ২০১৬ ১৭:২২



'প্রধানমন্ত্রী উন্নয়ন ও সততার নেত্রী আর খালেদা ষড়যন্ত্রের নেত্রী'

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়ন ও সততার নেত্রী আর খালেদা জিয়া হলেন দুর্নীতি ও ষড়যন্ত্রের নেত্রী। তিনি বলেন, যারা এখনও দেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না তাদের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে।

তিনি আজ সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আওয়ামী জনতা লীগের 'বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতা' শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

'স্বাধীনতার মাস মার্চ মাস- স্বাধীনতাকামী বাঙালি জাতির আনন্দের মাস' -এ কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ মাসে শুধু বিএনপি-জামায়াতের মুখে হাসি থাকে না। কারণ তারা এখনও দেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না।

মায়া বলেন, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মহান স্বাধীনতা দিবসে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানাতে গেলেও তার মুখে কোনো হাসি ছিল না।

সংগঠনের সভাপতি এইচ এম ওসমান গণি বেলালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আব্দুল হক সবুজ, দপ্তর সম্পাদক শহীদুল হক মিলন ও উপ-দপ্তর সম্পাদক মো. জামাল উদ্দিন।

তিনি বলেন, বিএনপি দেশে যতই ষড়যন্ত্র করুক না কেন, কোনো লাভ হবে না। কারণ দেশের মানুষ তাদের ষড়যন্ত্র সম্পর্ক অবগত রয়েছে। মায়া বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করার জন্য বারবার চেষ্টা করা হয়েছে। তিনি মারা গেলে দেশ বর্তমান অবস্থানে আসতে পারতো না।

তিনি বলেন, দেশের মানুষ যাতে স্বাধীনতার সুফল পেতে না পারে সে জন্যই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে।

মায়া বলেন, বিএনপির আগুন সন্ত্রাসের জন্য চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তারা চেয়ারম্যান প্রার্থী খুঁজে পাচ্ছে না। তাদের অবস্থা মুসলিম লীগের মতো হয়ে গেছে।

তিনি বলেন, ২০১৯ সালের আগে দেশে কোনো সাধারণ নির্বাচন হবে না। বিএনপিকে সে সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। আর সে নির্বাচনে তারা অংশ গ্রহণ না করলে তাদের কোনো অস্তিত্বই থাকবে না।


মন্তব্য