kalerkantho


'২০১৯ সালের নির্বাচনে তিন কারণে শেখ হাসিনাকে ভোট দিবে জনগণ'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ মার্চ, ২০১৬ ১৯:১৬



'২০১৯ সালের নির্বাচনে তিন কারণে শেখ হাসিনাকে ভোট দিবে জনগণ'

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, ২০১৯ সালের নির্বাচনে তিনটা কারণে দেশের জনগণ শেখ হাসিনাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করবে। সেটা হচ্ছে পদ্মা সেতু নির্মাণ, বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান ও জনগণকে সঠিকভাবে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়া।


নাসিম আজ বৃহষ্পতিবার সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল আয়োজিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৬তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার সভাপতিত্বে সভায় স্বাস্থ্য সচিব সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মো. নুরুল হক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
মোহাম্মদ নাসিম বলেন, দেশে শিশুদের মাতৃদুগ্ধ পানের হার কমে যাওয়ার ঘটনা দুঃখজনক। দেশের পুষ্টি পরিস্থিতির উন্নতির জন্য অচিরেই জাতীয় পুষ্টি পরিষদকে সক্রিয় করা হবে।
তিনি বলেন, দেশীয় শাক-সবজি ও ফল খেয়ে আমরা আমাদের অপুষ্টি দূর করতে পারি। কিন্তু তার পরিবর্তে আমরা শিশুদের ফাস্ট ফুড খাওয়াচ্ছি। এটা দেশের পুষ্টি পরিস্থিতিকে নাজুক করছে।
সন্তানদের ফাস্টফুড খাবার থেকে বিরত রাখতে অভিবাবকদের প্রতি আহবান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, নিজ নিজ সামার্থ্য অনুযায়ী সন্তানদের গড়ে তুলুন। সন্তানদেরকে সময় দিন। তাঁদেরকে ফাস্টফুড খাবার থেকে বিরত রাখুন। প্রিয় সন্তান যেনো কোনোভাবেই মাদকাসক্ত না হয় সেদিকে খেয়াল রাখুন।
এদিকে দুপুরে মোহাম্মদ নাসিম বঙ্গবন্ধুর ৯৬তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় আয়োজিত চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় উত্তীর্ণদের মধ্যে পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী, চিকিৎসক, কর্মকর্তা, নার্স ও কর্মচারীদের শিশু সন্তানদের অংশগ্রহণে চিত্রাঙ্কন এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।
এ সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. মোঃ রুহুল আমিন মিয়া, উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মোঃ শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ, স্বাস্থ্য অধিধপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মোহাম্মদ নুরুল হক, পরিচালক হাসপাতাল ও ক্লিনিক অধ্যাপক ডা. সামিউল ইসলাম সাদি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


মন্তব্য