kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মাংস সংরক্ষণ

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



মাংস সংরক্ষণ

মডেল : সুইটি ছবি : কাকলী প্রধান

প্যাকেটের ক্ষেত্রে

♦    কোরবানির মাংস জিপলক প্যাকেটে সংরক্ষণ করতে পারলে সবচেয়ে ভালো।

♦    মাংস থেকে রক্ত পড়তে থাকলে অবশ্যই রক্ত পরিষ্কার করে বা  শুকনো কাপড় দিয়ে মুছে মাংস সংরক্ষণ করুন।

♦    একই ব্যাগে অনেক মাংস না রেখে অল্প অল্প করে কয়েকটি প্যাকেটে রাখুন। রাখার সময় প্যাকেট থেকে বাতাস বের করে নেবেন।

♦    পশু জবাইয়ের পরপরই সংরক্ষণ না করে কিছুটা সময় পরে মাংস সংরক্ষণ করুন। এ সময়টা মাংস খোলা বাতাসে একটু ছড়িয়ে রাখুন। মাংস না ধুয়ে রাখা ভালো।

♦    গরুর মাংস চার থেকে পাঁচ মাস ফ্রিজে রেখে খেতে পারবেন।

♦    রান্না করা মাংস ছোট ছোট বক্সে রাখতে পারেন। বারবার বক্স না খুলে শুধু খাওয়ার সময়ই খুলুন।

♦    মাংস জমাট বাঁধার আগে ফ্রিজের দরজা বারবার খোলা থেকে বিরত থাকুন।

♦    সংরক্ষণের সময় প্যাকেটের গায়ে লিখে বা চিহ্ন দিয়ে রাখুন, যাতে পরবর্তী সময়ে প্যাকেট খুঁজতে সমস্যা না হয়।

 

সংরক্ষণের  উপায়

সঠিক পদ্ধতি মেনে মাংস সংরক্ষণ করলে মাংসের স্বাদ ও পুষ্টি—দুইই ঠিক থাকে। কোরবানির মাংস রেফ্রিজারেটরে, সিদ্ধ করে অথবা শুকিয়ে সংরক্ষণ করা যায়।

♦    ফ্রিজে মাংস সংরক্ষণ করতে চাইলে তাজা মাংস না ধুয়ে বড় বড় টুকরো করে পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে খোলা বাতাসে শুকিয়ে তারপর পলিব্যাগে মুড়িয়ে ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে সংরক্ষণ করুন।

♦    ফ্রিজ না থাকলে সিদ্ধ করেও মাংস সংরক্ষণ করা সম্ভব। এ ক্ষেত্রে মাংসকে চাকা চাকা করে কেটে ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। তারপর হাঁড়িতে তেল গরম করে মাংস দিয়ে এমনভাবে রান্না করতে হবে, যাতে মাংস পুরোপুরি সিদ্ধ হয়। বাতাসের সংস্পর্শে যাতে না আসে, সে জন্য মাংসকে তেলে ডুবু ডুবু অবস্থায় রাখতে হবে। দু-এক দিন পর পর তেলে ডোবানো মাংস গরম করে নিতে হবে। এভাবে দুই থেকে তিন সপ্তাহ মাংস সংরক্ষণ করা যায়।

♦    শুকিয়ে মাংস সংরক্ষণ করতে চাইলে প্রথমে তাজা মাংস ধুয়ে পাতলা পাতলা টুকরো করে কাটতে হবে। এরপর এতে হলুদ ও লবণ মাখিয়ে তারে গেঁথে রোদে শুকাতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে, তারটি যাতে জীবাণুমুক্ত হয়। চুলার ওপর তার ঝুলিয়েও মাংস শুকানো যায়। বাইরে রোদে শুকালে ধুলাবালি ও মশা-মাছি যাতে না বসে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। শুকানো মাংস এয়ারটাইট ব্যাগে সংরক্ষণ করতে হবে। এভাবে মাংস প্রায় তিন মাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যায়।

 

চর্বি ছাড়ানো

মাংসের চর্বি একটি বড় সমস্যা। একে তো তেল শরীরের জন্য ক্ষতিকর, আবার রান্নার সময়ও ঝামেলা তৈরি করে। মাংসের তেলচর্বি ছাড়াতে কাটার সময়ই খেয়াল রাখতে পারেন, যেন মাংসের গায়ে চর্বি না থাকে। গরু বা খাসির মাংসে আলাদা করে চর্বির লেয়ার থাকে। সেগুলো ফেলে দেওয়াই ভালো। পশুর চর্বি কাটার জন্য আলাদা চিকন ছুরি পাওয়া যায়। কসাইকে আগেই বলে রাখুন চর্বি বাদ দিয়ে মাংস কাটার জন্য অথবা নিজেরা কাটলে সে ব্যাপারে খেয়াল রাখুন। কারো বাসায় কিডনি, হার্ট বা হাইপারটেনশনের রোগী থাকলে রান্নার আগেই চর্বি কেটে ফেলে দিন। অনেক সময় কোথাও দাওয়াতে গেলে বা অন্য কেউ রান্না করলে তেলচর্বিসহ রান্না করতে পারে। সে ক্ষেত্রে খাবার পরিবেশনের সময় আলাদা করে তেল তুলে রেখে পরিবেশন করার জন্য অনুরোধ করতে পারেন।


মন্তব্য