kalerkantho

অরিত্রীর আত্মহত্যায় প্ররোচনা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন পিছিয়েছে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ মার্চ, ২০১৯ ১৪:৫৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অরিত্রীর আত্মহত্যায় প্ররোচনা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন পিছিয়েছে

ছবি অনলাইন

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যায় প্ররোচনার মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন জমার দিন নির্দিষ্ট ছিল আজ। তবে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেননি। ফলে প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পিছিয়ে ১০ এপ্রিল ধার্য করেছেন আদালত।

আজ সোমবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা প্রতিবেদন দাখিল করতে না পারায় ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরী নতুন  তারিখ রাখেন বলে সংশ্লিষ্ট আদালত পুলিশের এসআই জালাল আহমেদ জানান।

গত ৩ ডিসেম্বর শান্তিনগরে নিজের বাসায় গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী। তার আগের দিন পরীক্ষায় নকল করার অভিযোগে তাকে পরীক্ষা হল থেকে বের করে দিয়েছিল স্কুল কর্তৃপক্ষ।

অরিত্রীর আত্মহত্যার ঘটনায় রাজধানীর পল্টন থানায় তার বাবা দিলীপ অধিকারী বাদী হয়ে গত ৪ ডিসেম্বর রাতে দণ্ডবিধির ৩০৫ ধারায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখার প্রধান শিক্ষক জিন্নাত আরা ও শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনাকে আসামি করা হয়।

মামলা দায়েরের পরদিন শিক্ষক হাসনা হেনাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ৯ ডিসেম্বর জামিন পান হাসনা হেনা।

স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি, অরিত্রী পরীক্ষায় মোবাইল ফোনে নকল নিয়ে টেবিলে রেখে লিখছিল। এরপর অরিত্রীর বাবা-মাকে ডেকে নেওয়া হয় স্কুলে। তখন অরিত্রীর সামনে তার বাবা-মাকে অপমাণ করা হয়েছিল বলে অভিযোগ ওঠে। অরিত্রীর স্বজনরা বলছেন, বাবা-মার ‘অপমান সইতে না পেরে’ ঘরে ফিরে আত্মহত্যা করে এই কিশোরী। স্বজনদের দাবি, নকল করেনি অরিত্রী। তবে অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস শিক্ষার্থী অরিত্রীর অভিভাবকদের অপমান করার কথা অস্বীকার করেন।

মন্তব্য