kalerkantho


মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার

ইউপি চেয়ারম্যান মধুর বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের সময় বৃদ্ধি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ নভেম্বর, ২০১৮ ০২:২১



ইউপি চেয়ারম্যান মধুর বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের সময় বৃদ্ধি

হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মধু মিয়া তালুকদারের বিরুদ্ধে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দুই মাস সময় পেল রাষ্ট্রপক্ষ।

গতকাল রবিবার ট্রাইব্যুনালে মামলার তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। কিন্তু তদন্ত সম্পন্ন করতে আরো দুই মাস সময় প্রয়োজন বলে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। এর ওপর শুনানি শেষে তা মঞ্জুর করেন বিচারপতি আমির হোসেনের নেতৃত্বে দুই সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। গতকাল ট্রাইব্যুনালে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা চমন। এই মামলার তদন্ত করছেন ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার কর্মকর্তা এএসপি নূর হোসেন। আগামী ৩ জানুয়ারি মামলার পরবর্তী দিন ধার্য করেছেন ট্রাইব্যুনাল।

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানি হানাদারদের হয়ে বানিচং উপজেলায় মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটনের অভিযোগ রয়েছে মধু মিয়া তালুকদারের বিরুদ্ধে। গত ২৩ মে তাঁর বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনাল গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। পুলিশ ওই দিনই তাঁকে গ্রেপ্তার করে।

তদন্ত সংস্থা সূত্রে জানা যায়, মধু মিয়া ১৯৭১ সালে ‘মধু বাহিনী’ নামে রাজাকার বাহিনী গড়ে তুলে বহু হিন্দু লোককে হত্যা করেন। স্বাধীনতাযুদ্ধ চলাকালে উপজেলার বিথঙ্গল গ্রামের বাসিন্দা প্রমোদ রায়, আরাধন সরকার ও আদম আলীকে নির্মমভাবে হত্যা, একাধিক নারী অপহরণ-ধর্ষণসহ মুক্তিকামী অসংখ্য সাধারণ নারী-পুরুষের ওপর নির্মম নির্যাতন চালায় এ বাহিনী। ফলে এসব নিহতের স্বজনরা রাজাকার কমান্ডার মধু ও তাঁর সহযোগীদের বিচার চেয়ে গত ২৯ মার্চ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার কাছে অভিযোগ দাখিল করে। 

পরবর্তী সময়ে তদন্ত সংস্থার প্রধান সমন্বয়ক আব্দুল হান্নান খানের নির্দেশে ওই সব ঘটনার তদন্ত শুরু হয়। তদন্তে মধু বাহিনীর প্রধান মধুসহ তাঁর লোকজন কর্তৃক নানা মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটিত করার প্রাথমিক সত্যতা মেলে। পরে মামলার তদন্তের স্বার্থে গত ২৩ মে তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন করলে তা মঞ্জুর করেন ট্রাইব্যুনাল। ওই দিনই পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে। পরদিন ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়। মধু এখন কারাবন্দি রয়েছেন। গতকাল শুনানির সময় তাঁকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়।



মন্তব্য