kalerkantho


প্রযুক্তিগত জ্ঞান ছাড়া দক্ষ প্রশাসন সম্ভব নয় : প্রধান বিচারপতি

নিজস্ব প্রতিবেদক    

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০৩:১৭



প্রযুক্তিগত জ্ঞান ছাড়া দক্ষ প্রশাসন সম্ভব নয় : প্রধান বিচারপতি

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। ফাইল ছবি

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, আধুনিক তথ্য-প্রযুক্তির উৎকর্ষতার যুগে একটি প্রশিক্ষিত ও প্রযুক্তিজ্ঞান সম্পন্ন জনবল ছাড়া কোনো দক্ষ প্রশাসন গঠন করা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, দক্ষতা অর্জনের জন্য যুগোপযোগী ও বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণের কোনো বিকল্প নেই। 
 
সুপ্রিম কোর্টের কর্মকর্তা-কর্মচারীর জন্য আয়োজিত এক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় সনদ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন প্রধান বিচারপতি। আপিল বিভাগের বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলীর সভাপতিত্বে সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত এ সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে ইউএনডিপির বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর সুদীপ্ত মুর্খার্জি সুপ্রিম কোর্টের রেজিষ্ট্রার জেনারেল ড. মো. জাকির হোসেন বক্তৃতা করেন। আপিল বিভাগের রেজিস্ট্রার বদরুল আলম ভূঞা এ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন। ইউএনডিপির আর্থিক সহযোগিতায় সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের ৬০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী এ প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশ নেন।  
 
প্রধান বিচারপতি বলেন, প্রশিক্ষণের মাধ্যমে প্রশিক্ষণার্থীরা একটি সুবিন্যস্ত মামলা ব্যবস্থাপনা এবং দাপ্তরিক কর্মপরিকল্পনার সক্ষমতা অর্জনসহ সামগ্রিক দক্ষতা লাভ করে। তিনি বলেন, আইটি সংক্রান্ত বিষয়ে তারা যে জ্ঞান অর্জন করেছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়। আইটি বিশেষজ্ঞ হিসেবে দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে তাদের করণীয় সম্পর্কে এবং বিদ্যমান আইন সম্পর্কেও তারা অনেক কিছু জেনেছে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, এ প্রশিক্ষণ কোর্স তাদের আইটি সম্পর্কে ধারণাকে আরো বহুমাত্রিক ও বিস্তৃত করবে। এতে অফিসের কাজের গুণগতমান বেড়ে যাবে। প্রশিক্ষণার্থীগণ তাদের এ অর্জিত জ্ঞানকে কর্মক্ষেত্রে প্রয়োগ করলেই প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্য বহুলাংশে সার্থক হবে। কাজের গুণগতমান আগের তুলনায় বহুলাংশে বৃদ্ধি পাবে বলে আমি আন্তরিকভাবে বিশ্বাস করি। ভবিষ্যতে এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন প্রধান বিচারপতি।
 
বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী বলেন, কর্মদক্ষতা অর্জনে প্রশিক্ষণের কোনো বিকল্প নেই। কোনো শিক্ষাই বিফলে যায় না, শিক্ষা কেউ চুরি করতে পারে না। তাই এ প্রশিক্ষণ কর্মক্ষেত্রে কাজে লাগাতে হবে। তিনি বলেন, ই-জুডিশিয়ারি বিষয়টি একটা সময় আমরা কল্পনাও করতে পারিনি। এখন এটাই বাস্তবতা।


মন্তব্য