kalerkantho


রাজীবের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ১০ জুন

আদালত প্রতিবেদক    

৯ মে, ২০১৮ ১০:৩৭



রাজীবের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ১০ জুন

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে দুই বাস চালকের রেষারেষিতে কলেজ শিক্ষার্থী রাজীব হোসেনের ডান হাত হারানোর ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় নতুন করে সংযোজিত ধারায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ১০ জুন ধার্য করা হয়েছে। 

আজ বুধবার মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। কোনো প্রতিবেদন না আসায় ঢাকা মহানগর হাকিম গোলাম নবী পরবর্তী তারিখ ধার্য করেন।

চলতি বছরের গত ৩ এপ্রিল রাজধানীর শাহাবাগ থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়। গত ১৬ এপ্রিল ঢামেক হাসপাতালে রাজীব মারা যাওয়ার পর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহবাগ থানার এসআই আফতাব আলী গত  ২৩ এপ্রিল মূল মামলার অন্যান্য ধারার সঙ্গে দণ্ডবিধির ৩০৪(খ) ধারা সংযোজন করার অনুমতি চাইলে তা মঞ্জুর করা হয়। 

বর্তমানে দণ্ডবিধির ২৭৯/৩৩৮(ক)/৩০৪(খ) ধারায় মামলাটির তদন্ত চলছে। 

এ মামলায় গ্রেপ্তার বিআরটিসি বাসের চালক ওয়াহিদ (৩৫) ও স্বজন বাসের চালক খোরশেদকে (৫০) গত ৫ এপ্রিল দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। রিমান্ড শেষে ৮ এপ্রিল তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়। 

গত ৩ এপ্রিল রাজধানীর কারওয়ান বাজার এলাকায় বেপরোয়া প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয় স্বজন পরিবহন ও বিআরটিসির একটি বাস। এ সময় বিআরটিসি বাসে থাকা তিতুমীর সরকারি কলেজের স্নাতক (বাণিজ্য) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র শিক্ষার্থী রাজীব হাসানের হাত কাটা পড়ে স্বজন পরিবহনের বাসের চাপায়। পথচারীরা তাকে পান্থপথের শমরিতা হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে  আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় গত ১৬ এপ্রিল মারা যান রাজীব।

প্রসঙ্গত, ওই ঘটনায় দায়ের করা রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জারি করা রুলের শুনানি শেষে গত ৮ মে বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের বেঞ্চ রাজীব হাসানের পরিবারকে এক কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দিয়েছেন। 

স্বজন পরিবহন ও বিআরটিসি বাসকে সমান হারে এই ক্ষতিপূরণ দিতে হবে বলে আদেশে বলা হয়েছে। আদেশে আরো বলা হয়, ক্ষতিপূরণের ৫০ ভাগ টাকা পরিশোধ করে ২৫ জুনের মধ্যে এ সংক্রান্ত অগ্রগতির প্রতিবেদন হাইকোর্টে জমা দিতে হবে। আগামী ২৫ জুন মামলার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করে ওইদিন ক্ষতিপূরণের বাকি ৫০ শতাংশ টাকা কীভাবে দিতে হবে তার বিষয়ে আদেশ দেবেন বলে জানিয়েছেন আদালত।



মন্তব্য